Engineer's Solutions

The Site is Engineering and Science Related

২৭ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি টেস্ট

বাংলা

 

১। কাজী নজরুল ইসলাম রচিত কাব্যগ্রন্থ কোনটি?

(ক) নতুন চাঁদ     (খ) কন্যাকুমারী     (গ) গড্ডলিকা          (ঘ) নেমেসিস

 

উত্তর: (গ) গড্ডলিকা

ব্যাখ্যা: ‘নতুন চাঁদ’ কাজী নজরুল ইসলাম রচিত কাব্যগ্রন্থ, ‘কন্যাকুমারী’ আবদুর রাজ্জাক কর্তৃক রচিত উপন্যাস, ‘গড্ডলিকা’ রাজশেখর বসুর গল্পগ্রন্থ  এবং ‘নেমেসিস নূরুল মোমেনের বিখ্যাত নাটক ।

 

২। লৌকিক কাহিনীর প্রথম রচয়িতা কে?

(ক) আলাওল       (খ) কোরেশী মগন              (গ) দৌলত কাজী    (ঘ) সৈয়দ সুলতান

 

উত্তর: (খ) কোরেশী মগন

ব্যাখ্যা:  পুরুষাক্রমে মুখে মুখে প্রচলিত বর্ণনামূলক গল্পকে লোক কাহিনী বা লৌকিক কাহিনী বলা হয় । এর মূল ভিত্তি কল্পনা । স্বর্গ-মর্ত্য পাতাল পর্যন্ত গল্পের আখ্যানের সীমানা বিস্তৃত । দেব-দৈত্য, জীন-পরী, রাক্ষস-খোক্ষস, রাজা-প্রজা, সাধু-সন্ন্যাসী, পীর-ফকির, কৃষক-তাঁতি, কামার-কুমার ইত্যাদি বিষয় নিয়ে লৌকিক কাহিনী রচিত হয়। লৌকিক কাহিনীর প্রথম রচয়িতা হিসেবে দৌলত কাজীই অগ্রগণ্য। দৌলত কাজী ‘সতীময়না ও লোর চন্দ্রানী’ কাব্য রচনা করে মানবীয় আখ্যায়িকার ধারা প্রাবর্তন করেন।

 

৩। সাপ্তাহিক ‘সুধাকর’- এর সম্পাদক কে?

(ক) মুন্সি মোহাম্মদ রিয়াজউদ্দিন আহমদ           (খ) মুন্সি মোহাম্মদ মেহের উল্লা

(গ) শেখ আব্দুর রহিম                                  (ঘ) ইসমাইল হোসেন সিরাজী

 

উত্তর: (গ) শেখ আব্দুর রহিম

ব্যাখ্যা: সাপ্তাহিক ‘সুধাকর’ (১৮৯৪), মাসিক ‘মিহির’ (১৮৯২), ‘হাফেজ’, ‘মোসলেম ভারত’ প্রভৃতি পত্রিকা সম্পাদন করেন শেখ আব্দুর রহিম । ‘মুসলমান’ (১৮৮৪), সাপ্তাহিক ‘নব সুধাকর’ (১৮৮৫), ‘ইসলাম’ (১৮৮৫) ইত্যাদি পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন মুন্সি মোহাম্মদ রিয়াজউদ্দিন আহমদ। ‘মাসিক ‘নূর’ (১৯১৯) ও সাপ্তাহিক ‘সুলতান’ (১৯২৩ পত্রিকা সম্পাদন করেন ইসমাইল হোসেন সিরাজী এবং মুন্সি মেহেরুল্লাহ ছিলেন ধর্মপ্রচারক । তিনি কোনো পত্রিকা সম্পাদন করেননি । তিনি ‘খ্রিস্টান ধর্মের অসারতা’ নামে একটি প্রচার পুস্তিকা প্রকাশ করেন ।

 

৪। মাসিক মোহাম্মদী কোন সালে প্রকাশিত হয়?

(ক) ১৯২৬           (খ) ১৯২৭                        (গ) ১৯২৮                        (ঘ)১৯২৯

 

উত্তর: (খ) ১৯২৭

ব্যাখ্যা: এ পত্রিকাটি দৈনিক, সাপ্তাহিক, মাসিক, এমনকি বার্ষিক হিসেবেও প্রকাশিত হয়েছে এবং পরে আবার মাসিক রূপে প্রকাশিত হয়ে অবশেষে লুপ্ত হয়েছে । দৈনিক আজাদের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক মোহাম্মদ আকরম খাঁর সম্পাদনায় ‘মোহাম্মদী” ১৯০৩ সালের ১৮ আগষ্ট কলকাতায়  আত্মপ্রকাশ করে । কখন এটি ছিল মাসিক পত্রিকা । এরপর ১৯১০ সালে এটি ‘সাপ্তাহিক মোহাম্মদী’ নামে মোহাম্মদ আকরম খাঁর সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় । ১৯২২ সালে এটি দৈনিক পত্রিকা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে । ১৯২৭ সালের ৬ নভেম্বর ‘সাপ্তাহিক মোহাম্মদী’ আবার নতুনভাবে প্রকাশিত হয় ।

 

৫। কোন পত্রিকা ১৯২৩ সালে প্রকাশিত হয়?

(ক) কালিকলম      (খ) প্রগতি            (গ) কল্লোল           (ঘ) সবুজপত্র

 

উত্তর: (গ) কল্লোল

ব্যাখ্যা: দীনেশরঞ্জন দাসের সম্পাদনায় ১৯২৩ সালে প্রকাশিত হয় মাসিক ‘কল্লোল’ পত্রিকাটি । শৈলজানন্দের সম্পাদনায় সচিত্র মাসিক ‘কালিকলম’ ১৯২৬ সালে, বুদ্ধদেব বসু ও অজিত দত্তের সম্পাদনায় সচিত্র মাসিক ‘প্রগতি’ ১৯২৭ সালে এবং প্রমথ চৌধুরীর সম্পাদনায় ‘সবুজপত্র’ ১৯১৪ সালে প্রকাশিত হয় ।

 

৬। ঢাকা থেকে প্রকাশিত হয় কোন পত্রিকাটি?

(ক) অরণি          (খ) পরিচয়           (গ) নবশক্তি          (ঘ) ক্রান্তি

 

উত্তর: (ঘ) ক্রান্তি

 

৭। গ্রিক শব্দ কোনটি?

(ক) তুফান           (খ)লুঙ্গি              (গ)কুশন             (ঘ) দাম

 

উত্তর: (ঘ) দাম

ব্যাখ্যা: ‘দাম’ হচ্ছে গ্রিক শব্দ। ‘তুফান’, ‘লুঙ্গি’, ও ‘কুশন’ যথাক্রমে আরবি, বর্মি ও ইংরেজ শব্দ।

 

৮। বাংলা ভাষায় কয়টি খাঁটি বাংলা উপসর্গ আছে?

(ক) উনিশ            (খ) কুড়ি             (গ) একুশ             (ঘ) বাইশ

 

উত্তর: (গ) একুশ

ব্যাখ্যা: বাংলা ভাষায় খাঁটি বাংলা উপসর্গ আছে ২১ টি। এগুলো হচ্ছে- অ, অঘা, অজ, অনা, আ, আড়, আব, আন, ইতি, উন, কদ, কু, নি, পাতি, বি, ভর, রাম, স, সা, সু, হা । এবং সংস্কৃত উপসর্গের সংখ্যা ২০ টি ।

 

৯। ‘শিশুরাজ্যে এই মেয়েটি একটি ছোটখাট বর্গির উপদ্রব বলিলেই হয়।’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কোন গল্পের সংলাপ?

(ক) একরাত্রি        (খ) শুভা              (গ) সমাপ্তি           (ঘ) পোস্টমাস্টার

 

উত্তর: (গ) সমাপ্তি

ব্যাখ্যা: সংলাপটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘সমাপ্তি’ ছোটগল্পের নায়িকা ‘মৃন্ময়ী’ সম্পর্কে লেখকের উক্তি।

 

১০। বাংলা সাহিত্যের প্রথম ইতিহাস গ্রন্থ কোনটি? 

(ক) বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস                        (খ) বঙ্গভাষা ও সাহিত্য

(গ) বাংলা সাহিত্যের কথা                 (ঘ) বাংলা সাহিত্যের রূপরেখা

 

উত্তর: (খ) বঙ্গভাষা ও সাহিত্য

ব্যাখ্যা: দীনেশচন্দ্র সেনগুপ্তের ‘বঙ্গভাষা ও সাহিত্য’ বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস বিষয়ক প্রথম প্রবন্ধগ্রন্থ। ১৮৯৬ সালে এটি প্রকাশিত হয়।

 

১১। কত খ্রিস্টাব্দে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘জগত্তারিণী’ পদক লাভ করেন?

(ক) ১৯১৬            (খ) ১৯২৩            (গ) ১৯৩৩           (ঘ) ১৯০৩

 

উত্তর: (খ) ১৯২৩

ব্যাখ্যা: অপরাজেয় কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় তার সামগ্রিক সাহিত্যকর্মের জন্য কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯২৩ সালে ‘জগত্তারিণী’ স্বর্ণপদক এবং ১৯৩৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘ডি লিট’ উপাধি লাভ করেন।

 

১২। রাজা রামমোহন রচিত বাংলা ব্যাকরণের নাম কি?

(ক) মাগধীয় ব্যাকরণ           (খ) গৌড়িয়া ব্যাকরণ           (গ) মাতৃভাষা ব্যাকরণ          (ঘ) ভাষা ও ব্যাকরণ

 

উত্তর: (খ) গৌড়িয়া ব্যাকরণ

ব্যাখ্যা: রাজা রামমোহন রায় প্রথম বাঙালি হিসেবে ‘গৌড়িয় ব্যাকরণ’ (১৮৩৩) রচনা করেন। তার অন্যান্য রচনা হচ্ছে ‘বেদান্তসার’ (১৮১৫), ‘ভট্টাচার্যের সহিত বিচার’ (১৮১৭), ‘সহমরণ বিষয়ক প্রবর্তক ও নিবর্তকের সম্বাদ’ (১৮১৮) ইত্যাদি।

 

১৩। ‘মেছো’ শব্দের প্রকৃতি-প্রত্যয় কি? 

(ক) মাছ+ও         (খ) মেছ+ও         (গ) মাছি+উয়া>ও              (ঘ) মাছ+উয়া>ও

 

উত্তর: (ঘ) মাছ+উয়া>ও

 

১৪। কোন সন্ধিটি নিপাতনে সিন্ধ?

(ক) বাক্+দান=বাগদান        (খ) উৎ+ছেদ=উচ্ছেদ
(গ) পর+পর=পরস্পর         (ঘ) সম+সার=সংসার

 

উত্তর: (গ) পর+পর=পরস্পর

ব্যাখ্যা: কোনো নিয়ম অনুসরণ না করে যখন সন্ধি সাধিত হয় তখন তাকে নিপাতনে সিন্ধ বলে। উপরিউক্ত সন্ধিগুলোর মধ্যে ‘পর+পর=পরস্পর’ ছাড়া অন্য সন্ধিগুলো ব্যাকরণের সুনির্দিষ্ট নিয়ম মেনে সম্পন্ন হয়েছে।

 

১৫। বাংলা মৌলিক নাটকের যাত্রা শুরু হয় কোন নাট্যকারের হাতে?

(ক) মধুসূদন দত্ত                (খ) দীনবন্ধু মিত্র

(গ) জ্যোতিন্দ্রনাথ ঠাকুর        (ঘ) রামনারায়ন তর্করত্ন

 

উত্তর: (ঘ) রামনারায়ন তর্করত্ন

ব্যাখ্যা: উনিশ শতকের গোড়ার দিকে সংস্কৃত নাটকের অনুবাদ শুরু হলেও তারাচরণ শিকদারের ‘ভদ্রার্জুন’ (১৮৫২) ও রামনারায়ন তর্করত্নের ‘কুলীনকুল সর্বস্ব’ (১৮৫৪) নাটক থেকে প্রকৃতপক্ষে বাংলা মৌলিক নাট্যসাহিত্যের সূত্রপাত হয়।

 

১৬। প্রত্যক্ষ কোনো বস্তুর সাথে পরোক্ষ কোনো বস্তুর তুলনা করলে প্রত্যক্ষ বস্তুটিকে বলা হয় ∑

(ক) উপমিত         (খ) উপমান          (গ) উপমেয়          (ঘ) রূপক

 

উত্তর: (গ) উপমেয়

ব্যাখ্যা: ‘উপমান’ শব্দের অর্থ ‘তুলনীয় বস্তু’। অর্থাৎ প্রত্যক্ষ কোনো বস্তুর সাথে অন্য কোনো পরোক্ষ বস্তুর তুলনা করা হলে ঐ প্রত্যক্ষ বস্তুটিকে ‘উপমেয়’ বলা হয়। পক্ষান্তরে, যার সাথে উপমা দেয়া হয় বা তুলনা করা হয় তাকে ‘উপমান’ বলে। যেমন-‘পদ্মআঁখি’ শব্দটিতে পদ্মের সাথে আঁখির উপমা দেয়া হয়েছে। সুতরাং ‘পদ্ম’ উপমান এবং ‘আঁখি’ উপমেয়। ‘উপমান’ ও ‘উপমেয়’ পদের সমাস হলে যদি উপমেয়ের অর্থ প্রধান রূপে প্রতিয়মান হয় তাকে উপমিত সমাস বলে। যেমন-পুরুষ সিংহের ন্যায়=পুরুষসিংহ এবং যে স্থলে উপমান ও উপমেয় সমাস হয়েছে এবং উভয়ের মধ্যে অভেদ কল্পনা করা হয়েছে তাকে রূপক সমাস বলে। যেমন-ফুল রূপ কুমারী=ফুলকুমারী।

 

১৭। ‘পাখি সব করে রব, রাতি পোহাইল’ পঙক্তির রচিয়তা ∑।

(ক) রামনারায়ণ তর্করত্ন        (খ) বিহারী লাল

(গ) কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার          (ঘ) মদনমোহন তর্কালংকার

 

উত্তর: (ঘ) মদনমোহন তর্কালংকার

ব্যাখ্যা: পংক্তিটির রচিয়তা মদনমোহন তর্কালঙ্কার (১৮১৭-১৮৮৫)। ‘শিশু শিক্ষা’ (১ম ও ২য় ভাগ-১৮৪৯ এবং ৩য় ভাগ-১৮৫০) নামক শিশুতোষ গ্রন্থ রচনা করে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেন। ‘পাখি সব করে রব রাতি পোহাইল’ পংক্তিটি এ গ্রন্থের প্রথমভাগের একটি সুপরিচিত ও জনপ্রিয় শিশুতোষ কবিতা।

 

১৮. ‘আমি কিংবদন্তীর কথা বলছি’-এর রচয়িতা কে?

(ক) সিকান্দার আবু জাফর     (খ) আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ

(গ) ফররুখ আহমদ             (ঘ) আহসান হাবীব

 

উত্তর: (খ) আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ

ব্যাখ্যা: ‘আমি কিংবদন্তীর কথা বলছি’- আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ রচিত কাব্যগ্রন্থ, প্রকাশিত হয় ১৯৮১ সালে । এ লেখকের অন্যান্য কাব্যগ্রন্থ হচ্ছে ‘সাতনরী হার’, ‘কখনও রং কখনও সুর’, ‘কমলের চোখ’, সহিষ্ণু প্রতিক্ষা’, ‘প্রেমের কবিতা’, ‘নির্বাচিত কবিতা’ ইত্যাদি।

 

১৯. ‘জীবনে জ্যাঠামি ও সাহিত্যে ন্যাকামি’ সহ্য করতে পারতেন না ∑

(ক) বঙ্কিমচন্দ্র                  (খ) সৈয়দ মুজতবা আলী

(গ) প্রমথ চৌধুরী                (ঘ) প্রমথনাথ বিশী

 

উত্তর: (গ) প্রমথ চৌধুরী

ব্যাখ্যা: ‘জ্যাঠামি’ শব্দের অর্থ- বাচালতা, পাকামি, অকালপক্বতা ইত্যাদি আর ‘ন্যাকামি’ শব্দের অর্থ- সারল্য বা সাধুতার ভানকারী, অজ্ঞতার ভান ইত্যাদি । বাংলা সাহিত্যে চলিত ভাষার প্রবর্তক প্রমথ চৌধুরী ছিলেন মার্জিত নাগরিক রুচি, প্রখর বুদ্ধিদীপ্ত ও অপূর্ব বাক-চাতুর্যের অধিকারী। সাহিত্যের উদ্দেশ্য সম্পর্কে তার মত হলো- ‘সাহিত্যের উদ্দেশ্য হচ্ছে সকলকে আনন্দ দান করা, কারও মনোরঞ্জন নয়। সাহিত্য ছেলের হাতের খেলনাও নয়, গুরুর হাতের বেতও নয়।‌’

 

২০. ‘এ মাটির সোনার বাড়া’ – এ উদ্ধৃতিতে ‘সোনা’ কোন অর্থে ব্যবহার হয়েছে?

(ক) বিশেষণের অতিশায়ন                 (খ) রূপবাচক বিশেষণ

(গ) উপাদান বাচক বিশেষণ                (ঘ) বিধেয় বিশেষণ

 

উত্তরঃ (ক) বিশেষণের অতিশায়ন

ব্যাখ্যাঃ বিশেষণ পদ যখন দুই বা ততোধিক বিশেষ্য পদের মধ্যে গুণ, অবস্থা, পরিমাণ প্রভৃতি বিষয়ে তুলনায় একের উৎকর্ষ বা অপকর্ষ বুঝিয়ে থাকে তাকে ‘বিশেষণের অতিশায়ন’ বলে । ‘এ মাটির সোনার বাড়া’ শব্দটি খাঁটি বাংলা শব্দের অতিশায়ন। এখানে মাটিকে সোনার চেয়ে বড় বা মূল্যবান মনে করা হয়েছে ।

ইংরেজী

২১. What would have happened if….?

(ক) The bridge is broken              (খ) The bridge would break

(গ) The bridge had broken         (ঘ) The bridge had been broken

 

উত্তরঃ (গ) The bridge had broken

ব্যাখ্যাঃ সাধারণত অতীতের কোনো action অথবা event যদি পরস্পর সম্পর্কিতভাবে ঘটে সেক্ষেত্রে modal verb হিসেবে ‘would have’ ব্যবহার করা হয় । would have …if… structure ব্যবহৃত হয় নিম্নরূপে- sub+would have+past participle form of verb+ if +2nd sub + had + past participle form of verb+ … যেমন- what would have happened if I had seen the advertisement in time? অর্থাৎ এখানে বলা হচ্ছে যদি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিটা সময় মতো লেখক দেখতে পেত বা পেত তাহলে কি ঘটত? হয়তো বা সে চাকরিটা পেয়ে যেত । কিন্তু চাকরিটা পায়নি কারণ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিটি সময়মতো পায়নি । অনুরূপভাবে প্রদত্ত ‍sentence-এ ‘What would have happened if the bridge had broken’ দ্বারা বোঝানো হয়েছে তারা ব্রিজটা সহজেই পেরিয়ে এসেছে । কিন্তু যদি ভেঙ্গে পড়ত তাহলে কি ঘটত? হয়তো তারা অনেকেই আহত হতো । কিন্তু কিছুই ঘটেনি ।

 

২২. Explain the meaning of ‘Bring to pass’.

(ক) Cause to destroy                     (খ) Cause to happen

(গ) Cause to carry out      (ঘ) Cause to convince

 

উত্তরঃ (খ) Cause to happen

ব্যাখ্যাঃ ‘Bring to pass’- এর অর্থ হচ্ছে কোনো কিছু ঘটা । ‘Cause to destroy’ দ্বারা ’ধ্বংস হওয়া’, ‘Cause to carry out’ বলতে কোনো কিছু সম্পাদন করা এবং ‘Cause to convince’ দ্বারা কোনো কিছু স্বমতে নিয়ে আসা এবং ‘Cause to happen’ দ্বারা কোনো কিছু ঘটানোকে বোঝায় ।

 

২৩. Which of the following sentences is the correct one?

(ক) Paper is made of wood          (খ) Paper is made from wood

(গ) Paper is made by wood          (ঘ) Paper is made on wood

 

উত্তরঃ (খ) Paper is made from wood

ব্যাখ্যাঃ উপরিউক্ত sentence- এর সম্ভাব্য দুটি উত্তর হচ্ছে (ক) এবং (খ) । কারণ ‘make of’ এবং ‘make from’ ‍উভয়ই group verbs- এর দ্বারা গঠন হওয়া বা তৈরি হওয়াকে বোঝায় । তবে উভয়ের মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে ‘make of’ দ্বারা কোনো কিছু দিয়ে তৈরি হওয়া বোঝায়, যেমন- The table is made of wood. অর্থাৎ কাঠ দ্বারা সরাসরি টেবিল তৈরি করা হয় এবং ‘make from’ দ্বারা কোনো কিছু থেকে তৈরি হওয়াকে বোঝায়, যেমন- ‍Sweets are made from. অর্থাৎ Milk- কে processing করে Sweets তৈরি করা হয় । উপরের sentence-এ ’Paper is made from wood’ দ্বারা সরাসরি কাঠ থেকে paper তৈরিকে বোঝায়নি, বরং কাঠ থেকে processing- এর মাধ্যমে paper তৈরিকে বুঝিয়েছে ।

 

২৪. The word bounty is closest in meaning to

(ক) generosity         (খ) familiar   (গ) dividing line      (ঘ) sympathy

 

উত্তরঃ (ক) generosity

ব্যাখ্যাঃ ‘generosity’ word-টির অর্থ হচ্ছে liberat, bountiful, noble ইত্যাদি; ‘familiar’ word-টির অর্থ হচ্ছে well-known, intimate, domestic, common ইত্যাদি এবং ‍ sympathy শব্দটির অর্থ হচ্ছে community of feeling, compassion, pity ইত্যাদি ।

 

২৫. Give the correct passive form of ‘My teacher embodies all the good qualities’.

(ক) All the good qualities are embodied by my teacher.

(খ) All the good qualities are embodied in my teacher.
(গ) All the good qualities are embodied to my teacher.

(ঘ) All the good qualities are embodied on my teacher.

 

উত্তরঃ (খ) All the good qualities are embodied in my teacher.

ব্যাখ্যাঃ এ sentence দ্বারা বোঝানো হয়েছে যে তার teacher সকল প্রকার ভালো গুণাবলী বাস্তব রুপদ্বান করে বা নিজের মধ্যে ধারণ করে স্পষ্ট প্রকাশ করে । তাই passive করার সময় ‘embodied in’ ব্যবহার করা হয়েছে ।

 

২৬. Choose the correct indirect speech- She asked me, ‘Are you happy in your new job?’

(ক) She asked me if I was happy in my new job

(খ) She asked me if I have been happy in my new job

(গ) She asked me whether I am happy in my new job

(ঘ) She asked me if I had been happy in my new job

 

উত্তরঃ (ক) She asked me if I was happy in my new job

ব্যাখ্যাঃ Direct Narration- এ Reported Speech যদি Interrogative sentence হয় তাহলে- Reporting verb- কে ask, demand, enquire, wonder ইত্যাদিতে পরিবর্তন করে নিতে হয়; Question-এর উত্তর যদি ‘yes’ বা ‘No’ দিয়ে দেয়া সম্ভব হয় তাহলে Reported Speech- এর আগে conjuction if এবং ক্ষেত্র বিশেষে ‘whether’ বসে ।

Reported Speech- কে Indirect করার সময় Assertive করে নিতে হবে । খ ও গ-এর option দুটিতে Reported Speech-কে present form- এ রাখা হয়েছে । কিন্তু, যেহেতু Reporting Speech past form-এ রয়েছে সেহেতু অবশ্যই  Reported Speech- কেও past form করতে হবে । আবার ঘ নং option-এ অনর্থক ‘had been’ ব্যবহার করা হয়েছে, যা দ্বারা বোঝাচ্ছে অতীতে চাকরিটি পেয়ে আমি খুশি হয়েছিলাম কিনা? সুতরাং এটিও সঠিক নয় ।

 

২৭. The meaning of the world ‘obese’ is –

(ক) very fat               (খ) ugly          (গ) tardy       (ঘ) obnoxious

 

উত্তরঃ (ক) very fat

ব্যাখ্যাঃ ‘Obese’ বলতে বোঝায় ‘very fat’ বা  ‘abnormally fat’; ‘ugly’ শব্দটির অর্থ হচ্ছে ‘unpleasant to look at’ or other senses, ill-natured ইত্যাদি; ‘tardy’ এর অর্থ হচ্ছে  ‘slow’, ‘sluggish’, ‘late’ ইত্যাদি এবং এর ‘obnoxious’ অর্থ হচ্ছে objectionable, offensive ইত্যাদি ।

 

২৮. A person who writes about his own life writes –

(ক) a diary                            (খ) a biography

(গ) an autobiography        (ঘ) a chronicle

 

উত্তরঃ (গ) an autobiography

ব্যাখ্যাঃ diary বলতে বোঝায় a book in which one writes about one’s daily experiences, records one’s private thoughts etc; ‘biography’ বলতে বোঝায় the story of a person’s life written by somebody else; ‘autobiography’ বলতে বোঝায় the story of a person’s life written by that person; এবং ‘chronicle’ বলতে বোঝায় a record of historical events in the order in which they happended. সুতরাং উপরের ৪টি word-এর অর্থ বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, ‘biography’ এবং ‘autobiography’ দ্বারা জীবনকাহিনী লেখাকে বোঝায়। তবে biography’ দ্বারা বোঝায় অন্য লোকের জীবনকাহিনী লেখানো এবং ‘autobiography’ দ্বারা নিজেই নিজের জীবনকাহিনী লেখাকে বোঝায় ।

 

২৯. Which of the following sentences is correct?

(ক) Why have you done this?      (খ) Why you had done this?

(গ) Why you have done this?       (ঘ) Why did you done this?

 

উত্তরঃ (ক) Why have you done this?

ব্যাখ্যাঃ Sentence- টি প্রশ্নবোধক না হলে হতো ‘You have done this’। এসব sentence-কে why দ্বারা interrogative করতে হলে নিচের sentence অনুযায়ী করতে হবে । Why + auxiliary verb+ subject + principle verb + objective or others. উপরিউক্ত structure অনুযায়ী sentence তৈরী করা হয়েছে (ক)-তে ।

 

৩০.  What will be the correct preposition to complete the sentence?

‘I am not good…….translation.’

(ক) in               (খ) about       (গ) with         (ঘ) at

 

উত্তরঃ (ঘ) at

ব্যাখ্যাঃ ‘Good’- এর পরে সাধারণত ‘at’ preposition ব্যবহৃত হলে বোঝায় ‘able to do something well’. যেমন- She is good at mathematics; ‘good’-এর সাথে with preposition বসলে বোঝায় ‘capable when using dealing with etc. যেমন- She is very good with children. সুতরাং উপরিউক্ত sentence এর জন্য ‘at’ appropriate preposition.

 

৩১. Which is the noun of the word ‘beautiful’

(ক) Beauty                (খ) Beautify

(গ) Beauteous          (ঘ) Beautifully

 

উত্তরঃ (ক) Beauty 

ব্যাখ্যাঃ ‘Beauty’ word টি noun; ‘Beautify’ word টি verb; ‘Beauteous’ হচ্ছে adjective এবং ‘Beautifully’ হছ্ছে adverb ।

 

৩২. Fill in the blank with appropriate preposition.

‘Hurry up! We have to go…….five minutes.

(ক) in               (খ) on              (গ) by (ঘ) for

 

উত্তরঃ (গ) by

ব্যাখ্যাঃ Sentence টিতে বলা হয়েছে ৫ মিনিট সময় আছে, এর মধ্যে বা ৫ মিনিটের পূর্বে অবশ্য পৌঁছাতে হবে। এক্ষেত্রে ‘in’ appropriate হবে না, কেননা নির্দিষ্ট কোনো সময় বা কোনো সময়ের মধ্যে বোঝাতে সাধারণত ‘in’ হয়। যেমন- I will come in an hour.তারিখ বা সময় বোঝাতে ‘on’ ব্যবহৃত হয় । যেমন- Meet me on Monday. ‘by’ দ্বারা নির্দিষ্ট সময়ের পূর্বে বোঝায়, যেমন- I will come by 5 pm. এ sentence দ্বারা বোঝাচ্ছে আমি বিকাল ৫ টার আগেই আসব। সুতরাং appropriate preposition হবে ‘by’. ‘for’ দ্বারা সাধারণত সময়ের ব্যপ্তি বোঝায়, যেমন- Chameli has been reading for an hour. সুতরাং ‘for’ ও উপরিউক্ত sentence এ হবে না।

 

৩৩.  Identify the imperative sentence.

(ক) I shall go to college     (খ) Matin is singing a song

(গ) Stand up                                     (ঘ) It has been raining since morning

 

উত্তরঃ (গ) Stand up

ব্যাখ্যাঃ যে sentence দ্বারা আদেশ, ‍উপদেশ, অনুরোধ, নিষেধ ইত্যাদি বোঝায় তাকে Imperative sentence বলে । উপরিউক্ত ৪টি sentence এ (ক)-তে ‘I shall go to college’ অর্থাৎ আমি কলেজে যাব’- এর মাধ্যমে আদেশ, উপদেশ, অনুরোধ বা নিষেধ কোনো কিছু বোঝোচ্ছে না, বরং এখানে অনুজ্ঞা বা ইচ্ছা বোঝাচ্ছে । (খ)-তে ‘Matin is singing a song’ অর্থাৎ ’মতিন গান গাচ্ছে’- এ sentence এর মাধ্যমেও আদেশ, উপদেশ, অনুরোধ বা নিষেধ কোনো কিছুই বোঝাচ্ছে না এবং এটি দ্বারা বর্ণনা বোঝাচ্ছে । সুতরাং এটি Imperative sentence নয় । (গ)-তে ‘Stand up’ অর্থাৎ উঠে দাঁড়াও বা দাঁড়ান দ্বারা পরিষ্কারভাবে আদেশ বোঝাচ্ছে । সুতরাং নিঃসন্দেহে এটি Imperative sentence. (ঘ)-তে ‘It has been raining since morning’ অর্থাৎ সকাল থেকে বৃষ্টি হচ্ছে- sentence টিও Assertive বা বর্ণনামূলক ।

 

৩৪. Fill in the blank with the suitable word:

To stay healthy, we must plan to have a balanced……

(ক) diet           (খ) food          (গ) drink       (ঘ) environment

 

উত্তরঃ (ক) diet

ব্যাখ্যাঃ উপরিউক্ত sentence এ balanced adjective টির সাথে diet হওয়াই সম্ভব’ কারণ স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য শুধু খাদ্য (food), পানীয় (drink), বা পরিবেশ (environment) নয়, প্রয়োজন সুষম খাদ্য ।

 

৩৫. Choose the correct alternative and mark its letter on your answer sheet.

The rich should not look down….the poor.

(ক) at             (খ) for            (গ) towards               (ঘ) upon

 

উত্তরঃ (ঘ) upon

ব্যাখ্যাঃ ‘look at’ অর্থাৎ তাকানো, প্রত্যাখ্যান করা, উপেক্ষা করা ইত্যাদি । যেমন- ‘She is looking at me’. ‘look for’ অর্থ- খোঁজা, সন্ধান করা, প্রত্যাশা করা ইত্যাদি । যেমন-  She is looking for me; look towards অর্থ- মুখোমুখি অবস্থায় বা বিপরীত অবস্থান করা । যেমন- The house looks towards the sea. ‘look down upon’ অর্থ- ঘৃণা করা, যেমন- The rich should not look down upon the poor.

 

৩৬. I look a map with me, as I didn’t want to…..my way on the journey.

(ক) loose        (খ) lose           (গ) lost           (ঘ) loss

 

উত্তরঃ (খ) lose

ব্যাখ্যাঃ ‍উপরিউক্ত sentence টি infinitive হওয়ায় এর structure হবে to + base form of verb অর্থাৎ verb এর present form-এর পূর্বে to বসিয়ে infinitive গঠিত হয় । Infinitive কোনো subject এর সাথে সম্পৃক্ত নয় । এটি শুধু verb এর ভাব বোঝায় । Number, person ও tense ভেদে এর কোনো পরিবর্তন হয় না । এ ক্ষেত্রে ‘loose’ হচ্ছে adjective, ‘lost’ হচ্ছে past tense of ‘lose’; loss হচ্ছে noun এবং শুধু ‘lose’ হচ্ছে verb- এর present form.

 

৩৭. Every driver must be held…….his actions.

(ক) responsible for (খ) responsible to

(গ) liable to               (ঘ) blamed for

 

উত্তরঃ (ক) responsible for

ব্যাখ্যাঃ অধস্তন উর্ধ্বতন কোনো কর্তৃপক্ষের নিকট কাজের জন্য দায়ী বা কোনো লোক অন্য কোনো লোকের কাছে কাজের জন্য দায়ী থাকলে সাধারণত ‘responsible to’ ব্যবহার করা হয় । যেমন- The director is directly responsible to the president. অপরপক্ষে কোনো কাজের দায়ভার যখন যে কাজ করে তার ওপরই বর্তায় তখন ‘be held responsible for’ ব্যবহৃত হয় । যেমন- Sumi is mentally ill and can’t be held responsible for her actions. ‘liable to’ দ্বারা কোনো দায়-দায়িত্বকে বোঝায় । যেমন- We are all liable to make mistakes when we are tired.

 

৩৮. ‘Through thick and thin’ means

(ক) under all conditions               (খ) to make thick and thin

(গ) not clear in understanding (ঘ) of great density

 

উত্তরঃ (ক) under all conditions

ব্যাখ্যাঃ ‘Through thick and thin’- এর অর্থ in spite of all the difficulties বা যা কিছুই ঘটুক না কেন । এবার নিম্নোক্ত option গুলো লক্ষ্য করি- (ক) under all conditions বলতে ‘যে কোনো অবস্থার মধ্যেও বোঝায় ।

 

৩৯. ‘Prior to’ means

(ক) after        (খ) before      (গ) immediately     (ঘ) during the period of

 

উত্তরঃ (খ) before

ব্যাখ্যাঃ ‘Prior to’- এর অর্থ হচ্ছে পূর্ববর্তী, পূর্বতন, পূর্বে, আগে ইত্যাদি । এবার দেখা যাক, নিম্নোক্ত option-গুলোর কোনটির সাথে মিল রয়েছে- ‘after’- এর অর্থ ‘পরে’, ‘পরবর্তীকালে’, ‘পশ্চাতে’ ইত্যাদি । ‘before’- এর অর্থ- ‘অগ্রবর্তী, সম্মুখে ইত্যাদি । ‘immidiately’ বলতে বোঝায়- ‘অবিলম্বে’, ‘তাৎক্ষণিক’ এবং ‘during the period of’ বলতে বোঝায় নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে। সুতরাং মূল ‘Prior to’ শব্দের সাথে সবচেয়ে বেশি মিল রয়েছে (খ)-তে ।

 

৪০. Nobody knocked him down; it was an-

(ক) incident              (খ) occurrence

(গ) accident              (ঘ) event

 

উত্তরঃ (গ) accident

ব্যাখ্যাঃ কেউ তাকে ‘knock down’ করতে পারেনি । এটি আসলেই একটি অপ্রত্যাশিত বা অভাবিত ঘটনা (accident). তাই গ-ই সঠিক সাধারণ কোনো ঘটনা (event) বা আনুষঙ্গিক (occurrence) বিষয় নয় । এটি কোনো অনু ঘটনা, উপঘটনা বা কাহিনী (incident) নয়। কারণ একজন মুষ্টিযোদ্ধার জীবনের কোনো না কোনো ক্ষেত্রে ‘knock down’ হওয়ার স্বাভাবিক-এর ব্যতিক্রম ঘটলেই এটি অপ্রত্যাশিত বা অস্বাভাবিক ঘটনা (accident) হিসেবে পরিগণিত হয়।

গনিত

৪১. ‍১+২+৩+…………+৫০=কত?

(ক) ৩৫৭২৫         (খ) ৪২৯২৫          (গ) ৪৫৫০০         (ঘ) ৪৭২২৫

 

৪২. ৪ টাকায় ৫ টি করে কিনে ৫ টাকায় ৪ টি করে বিক্রয় করলে শতকরা কত লাভ হবে?

(ক) ৪৫%           (খ) ৪৮.৫০%       (গ) ৫২.৭৫%      (ঘ) ৫৬.২৫%

৪৩. এক ব্যবসায়ী একটি পণ্যের মূল্য ২৫% বাড়ালো, অতঃপর বর্ধিত মূল্য থেকে ২৫% কমালো। সর্বশেষ মূল্য সর্বপ্রথম মূল্যের তুলনায় ∑

(ক) ৪৫% কমানো হয়েছে                 (খ) ৬.২৫% কমানো হয়েছে

(গ) ৫% বাড়ানো হয়েছে                   (ঘ) ৬.২৫% বাড়ানো হয়েছে

৪৪. যদি একটি কাজ ৯ জন লোক ১২ দিনে করতে পারে, অতিরিক্ত ৩ জন লোক নিয়োগ করলে কাজটি কতদিনে শেষ হবে?

(ক) ৭                 (খ) ৯                (গ) ১০                (ঘ) ১২

 

 

৪৫. শিক্ষা সফরে যাওয়ার জন্য ২৪০০ টাকায় বাস ভাড়া করা হলো এবং প্রত্যেক ছাত্র/ছাত্রী সমান ভাড়া বহন করবে ঠিক হলো। অতিরিক্ত ১০ জন ছাত্র/ছাত্রী যাওয়ায় প্রতি জনের ভাড়া ৮ টাকা কমে গেল । বাসে কতজন ছাত্র/ছাত্রী গিয়েছিল?

(ক) ৪০  (খ) ৪৮   (গ) ৫০ (ঘ) ৬০

৪৬. পিতা, মাতা ও পুত্রের বয়সের গড় ৩৭ বছর। আবার পিতা ও পুত্রের বয়সের গড় ৩৫ বছর । মাতার বয়স কত?

(ক) ৩৮ বছর                    (খ) ৪১ বছর

(গ) ৪৫ বছর                     (ঘ) ৪৮ বছর

 

উত্তরঃ খ

ব্যাখ্যাঃ পিতা, মাতা ও পুত্রের মোট বয়স = (৩৭×৩) = ১১১ বছর

পিতা ও পুত্রের মোট বয়স = (৩৫×২) = ৭০ বছর

.·. মাতার বয়স = (১১১μ৭০) = ৪১ বছর

 

৪৭. যদি =14 এবং xy= 2 হয় তবে x2+y2= কত?

(ক) 12 (খ) 14  (গ) 16 (ঘ) 18

 

উত্তরঃ (ঘ) 18

ব্যাখ্যাঃ x2+y2= (xμy)2 +2xy= 14+2×2= 18

 

৪৮. বৃত্তের ব্যাস তিনগুণ বৃদ্ধি করলে ক্ষেত্রফল কতগুণ বৃদ্ধি পাবে?

(ক) ৪                 (খ) ৯                 (গ) ১২                (ঘ) ১৬

 

উত্তরঃ (খ) ৯

ব্যাখ্যাঃ ধরি, ব্যাস= ২x

.·. ব্যাসার্ধ(r)= x; ক্ষেত্রফল= pr2

ব্যাসার্ধ ৩ গুণ বৃদ্ধি করলে, ব্যাস = ৬ x, r= ৩x

.·. ক্ষেত্রফল=p(৩x)2 = ৯px2

 

৪৯. একটি সমদ্বিবাহু সমকোণী ত্রিভূজের অতিভুজের দৈর্ঘ্য ১২ সেমি হলে ত্রিভুজটির ক্ষেত্রফল কত বর্গ সেমি?

(ক) ৩৬             (খ) ৪৮              (গ) ৫৬               (ঘ) ৭২

 

 

৫০. ৬০ থেকে ৮০ এর মধ্যবর্তী বৃহত্তম ও ক্ষুদ্রতম মৌলিক সংখ্যার অন্তর হবে

(ক) ৮                (খ) ১২                (গ) ১৮               (ঘ) ১৪০

 

উত্তরঃ (গ) ১৮

ব্যাখ্যাঃ ৬০ থেকে ৮০ এর মধ্যবর্তী বৃহত্তম ও ক্ষুদ্রতম মৌলিক সংখ্যা হচ্ছে যথাক্রমে ৬১ ও ৭৯ । এ দুটি সংখ্যার অন্তর হবে (৭৯μ৬১) = ১৮ ।

 

 

বিষয়: বাংলাদেশ বিষয়াবলি

৫১. NIPORT কি?

(ক) জনসংখ্যা বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান            (খ) পোলট্রি ফার্ম বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান

(গ) নদীবন্দর বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান              (ঘ) বন্দর বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান

 

উত্তরঃ (ক) জনসংখ্যা বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান    

ব্যাখ্যাঃ NIPORT জনসংখ্যা বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান । ১৯৭৭ সালে মধ্যম পর্যায়ে প্রোগ্রাম ম্যানেজার বা কর্মসূচি ব্যবস্থাপকদের প্রশিক্ষণদানের জন্য ‘ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব পপুলেশন ট্রেনিং’ (NIPOT) স্থাপন করা হয় । পরে এ সংস্থাটিকে আরও সম্প্রসারণ করা হয় এবং এর নতুন নাম করা হয় ‘ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব পপুলেশন রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং’ (NIPORT) ।

 

৫২. সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদে ‘রাষ্ট্র ও গণজীবনের সর্বস্তরে নারী পুরুষের সমান অধিকার লাভ করিবেন’ বলা আছে?

(ক) ১০ নং অনুচ্ছেদে           (খ) ২১ (২) নং অনুচ্ছেদে

(গ) ২৭ নং অনুচ্ছেদে           (ঘ) ২৮ (২) নং অনুচ্ছেদে

 

উত্তরঃ (ঘ) ২৮ (২) নং অনুচ্ছেদে

ব্যাখ্যাঃ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের তৃতীয় ভাগে মৌলিক অধিকার অংশের ২৮ (২) নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে ‘রাষ্ট্র ও গণজীবনের সর্বস্তরে নারী পুরুষের সমান অধিকার লাভ করিবেন ।’

 

৫৩. UNDP রিপোর্ট সেপ্টেম্বর ২০০৫ সাল মোতাবেক বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় কত?

(ক) ৪৪৪ ডলার      (খ) ৭৭০ ডলার      (গ) ১০৭০ ডলার    (ঘ) ১৭৭০ ডলার

 

উত্তরঃ (ঘ) ১৭৭০ ডলার

ব্যাখ্যাঃ ৭ সেপ্টেম্বর, ২০০৫ UNDP প্রকাশিত মানব উন্নয়ন রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ১৭৭০ ডলার । UNDP প্রকাশিত ২০১৮ সালের রিপোর্টে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ৩,৬৭৭ মার্কিন ডলার ।

 

৫৪. স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদানের জন্য ‘বীরপ্রতীক’ উপাধি লাভ করে কতজন?

(ক) ৭ জন           (খ) ৬৮ জন          (গ) ১৭৫ জন        (ঘ) ৪২৬ জন

 

উত্তরঃ (ঘ) ৪২৬ জন

ব্যাখ্যাঃ বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদান রাখার জন্য মোট ৬৭৬ জনকে বীরত্বসূচক উপাধি প্রদান করা হয় । এর মধ্যে ৭ জনকে বীরশ্রেষ্ঠ, ৬৮ জনকে বীরউত্তম, ১৭৫ জনকে বীরবিক্রম এবং ৪২৬ জনকে বীরপ্রতীক উপাধি প্রদান করা হয় । ৪২৬ জন বীরপ্রতীকের মধ্যে ক্যাপ্টেন সিতারা বেগম (সেনাবাহিনী, ২ নং সেক্টর) এবং মোসাম্মৎ তারামন বেগম (গণবাহিনী, ১১ নং সেক্টর) এ দুজন হলেন নারী বীরপ্রতীক ।

 

৫৫. বাংলাদেশের ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট কোথায় অবস্থিত?

(ক) দিনাজপুর       (খ) গোপালপুর       (গ) পাকশী          (ঘ) ঈশ্বরদী

 

উত্তরঃ (ঘ) ঈশ্বরদী

ব্যাখ্যাঃ ঈশ্বরদীতে অবস্থিত বাংলাদেশের ইক্ষু গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট ইক্ষুর ওপর নানা গবেষণা ও ইক্ষু চাষের ওপর নানা প্রশিক্ষণ প্রদান করে থাকে । এ প্রতিষ্ঠানটি ৩০ টি উন্নত জাতের উচ্চ ফলনশীল আখ উদ্ভাবন করেছে । বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট- এর বর্তমান নাম বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট ।

 

৫৬. মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল অর্জন করার কথা কোন সময়ে?

(ক) ২০১০ সাল      (খ) ২০১৫ সাল      (গ) ২০২০ সাল     (ঘ) ২০২৫ সাল

 

উত্তরঃ (খ) ২০১৫ সাল

ব্যাখ্যাঃ মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল (MDG) ২০০০ সালে অনুষ্ঠিত সহস্রাব্দ উন্নয়ন সম্মেলনে গৃহিত ঐতিহাসিক ‘সহস্রাব্দ উন্নয়ন ঘোষণা’ । যাতে বিশ্ববাসীর জন্য ২০১৫ সালের মধ্যে অর্জনযোগ্য আটটি লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়। এ লক্ষ্যগুলো হলো ১. চরম দারিদ্র্য ও ক্ষুধা নির্মূলকরণ, ২. সর্বজনীন প্রাথমিক শিক্ষা অর্জন, ৩. নারী-পুরুষ সমতা অর্জন ও নারীর ক্ষমতায়নে উৎসাহ দান, ৪. শিশু মৃত্যুর হার হ্রাসকরণ, ৫. মাতৃস্বাস্থ্যের উন্নয়ন, ৬. এইচআইভি/এইডস ম্যালেরিয়া ও অন্যান্য রোগ নির্মূল, ৭. পরিবেশগত স্থিতিশীলতা নিশ্চিতকরণ, ৮. সার্বিক উন্নয়নের জন্য বিশ্ববাপী অংশীদারিত্ব গড়ে তোলা ।

 

৫৭. রাজারবাগ পুলিশ লাইনে ‘দুর্জয়’ ভাস্কর্যর্টির শিল্পী কে?

(ক) হামিদুর রহমান            (খ) মৃণাল হক       (গ) শামিম শিকদার            (ঘ) নভেরা আহমেদ

 

উত্তরঃ (খ) মৃণাল হক

ব্যাখ্যাঃ ‘দুর্জয়’ ভাস্কর্যর্টির শিল্পী মৃণাল হক । তার অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ শিল্পকর্ম হচ্ছে মতিঝিল বিমান অফিসের সামনের ‘বলাকা’ এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘গোল্ডেন জুবিলি টাওয়ার’ ।

 

৫৮. চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সাবমেরিন কেবলস অপটিক্যাল ফাইবার স্থাপন করার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে কত দূরত্বের ব্যয় বহন করতে হবে?

(ক) ৭০০ কিমি      (খ) ৫৭০ কিমি      (গ) ৩০০ কিমি     (ঘ) ১৭০ কিমি

 

উত্তরঃ (ঘ) ১৭০ কিমি

ব্যাখ্যাঃ ২৭ মার্চ ২০০৪ দুবাইয়ে বাংলাদেশ সরকার সাবমেরিন ক্যাবলের নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ চুক্তিতে স্বাক্ষর করে । ১৪ টি দেশের ১৬ টি টেলিকম প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে গঠিত কনসোর্টিয়াম দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া-মধ্যপ্রাচ্য-পশ্চিম ইউরোপ-৪ (SEA-ME-WE-4) এর সাথে এ চুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রবেশ করে তথ্যপ্রযুক্তির সুপার হাইওয়েতে । ফ্রান্সের মার্সাই থেকে সিঙ্গাপুর পর্যন্ত ২২ হাজার কিলোমিটার দীর্ঘ এ সংযোগ লাইনে বাংলাদেশ অংশের দৈর্ঘ্য ১ হাজার ২৪০ কিলোমিটার । বাংলাদেশ কক্সবাজারে এ নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হয় । ঢাকা ও চট্টগ্রামের মধ্যে ফাইবার অপটিক ক্যাবল সংযোগ রয়েছে । তাই চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত অপটিক্যাল ফাইবার স্থাপনের জন্য ১৭০ কিমি দূরত্বের ব্যয় সরকারকে বহন করতে হবে । ২১ মে ২০০৬ সাবমেরিন ক্যাবলের উদ্বোধনের মাধ্যমে বাংলাদেশ তথ্যপ্রযুক্তির এ মহাসারণিতে যুক্ত হয় ।

 

৫৯. রাজেন্দ্রপুর সেনাবিনাসে অবস্থিত মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভের নাম কি?

(ক) বিজয়স্তম্ভ       (খ) বিজয়কেতন    (গ) স্বাধীনতা সোপান           (ঘ) রক্তসোপান

 

উত্তরঃ (ঘ) রক্তসোপান

 

৬০. বাংলাদেশের পোস্টাল একাডেমি কোথায় অবস্থিত?

(ক) রাজশাহী              (খ) ঢাকা                  (গ) চট্টগ্রাম       (ঘ) খুলনা

 

উত্তরঃ ক

ব্যাখ্যাঃ ডাক বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রশিক্ষন ‍দানের লক্ষ্যে ১৯৮৬ সালে রাজশাহীতে একটি পোস্টাল একাডেমি স্থাপন করা হয়েছে। ডাক বিভাগের পুরনো ঐতিহ্য এবং নিদর্শনসমূহ সংরক্ষণের লক্ষ্যে ৯ সেপ্টেম্বর ১৯৬৬ ঢাকা জিপিওতে একটি পোস্টাল মিউজিয়াম চালু হয়, যা ১৯৮০ সালের ৩০ জানুয়ারি পূর্ণাঙ্গ পোস্টাল মিউজিয়াম হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ।

 

৬১. প্রস্তাবিত পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য কত কিমি?

(ক) ৫.০৩           (খ) ৬.০৩            (গ) ৪.৮             (ঘ) ৬.৮

 

উত্তরঃ —

ব্যাখ্যাঃ প্রস্তাবিত পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য বাড়িয়ে ৬.১৫ কিলোমিটারে নির্ধারণ করা হয়েছে । এর আগে এ সেতুর দৈর্ঘ্য ছিল ৫.৮ কিলোমিটার । এখন দু’প্রান্তের সংযোগ সড়কসহ সেতুর দৈর্ঘ্য হবে ১২.১৬ কিলোমিটার । ২৫ জুন ২০০৯ পদ্মা সেতুর স্কিম ডিজাইন উপস্থাপনাকালে কনসালট্যান্ট প্রতিষ্ঠান ‘মনসেল এইকম’ এ পরিকল্পনার কথা জানায়। ২৯ জানুয়ারি ২০০৯ আনুষ্ঠানিকভাবে পদ্মা সেতুর নির্মাণের প্রক্রিয়া শুরু হয় । গুণগত মানভিত্তিক যাচাই প্রক্রিয়ায় নকশা পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছে নিউজিল্যান্ডভিত্তিক মনসেল-এইকম (Manusell-AECOM)। পদ্মায় ইস্পাতের দোতলা সেতু হবে । উপরে থাকবে চার লেনের সড়ক, নিচে রেল । সেতুর প্রস্থ ১৮.১০ মিটারে (পূর্বে ছিল ২৫ মিটার) নামিয়ে আনা হয় ।

 

৬২. বাংলাদেশ সর্বপ্রথম কোন মহিলা টেস্টটিউব শিশুর মা হন?

(ক) পারভীন ফাতেমা           (খ) ফিরোজা বেগম

(গ) রওশন জাহান               (ঘ) কানিজ ফাতেমা

 

উত্তরঃ (খ) ফিরোজা বেগম

ব্যাখ্যাঃ ৩০ মে ২০০১ ধানমন্ডির সেন্ট্রাল হসপিটালে জন্মলাভ করে হীরা, মণি ও মুক্তা নামে ৩টি টেস্টটিউব শিশু। এদের বাবা-মা ছিলেন আবু হানিফ ও ফিরোজা বেগম এবং এ প্রকল্পের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন ডা. পারভীন ফাতেমা ।

 

৬৩. বাংলাদেশ জাতিসংঘের কততম সদস্য?

(ক) ১৩৬ তম       (খ) ১৩৭ তম        (গ) ১৩৮ তম       (ঘ) ১৩৯ তম

 

উত্তরঃ (ক) ১৩৬ তম

ব্যাখ্যাঃ বাংলাদেশ জাতিসংঘের ১৩৬ তম সদস্য। ১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৭৪ জাতিসংঘের ২৯ তম অধিবেশনে ৩ টি দেশ সদস্যপদ লাভ করে । এগুলো হচ্ছে- ‘বাংলাদেশ’, ’গ্রানাডা’ এবং ‘গিনি বিসাউ’ । এর পূর্বে জাতিসংঘের সদস্য ছিল ১৩৫টি। ১৯৭৪ সালের সদস্যপদ লাভকারী ৩টি নিয়ে জাতিসংঘের সদস্য সংখ্যা দাঁড়ায় ১৩৮ টিতে। তবে বর্ণক্রমানুসারে নাম আসায় বাংলাদেশ ১৩৬তম, গ্রানাডা ১৩৭তম, গিনি বিসাউ ১৩৮তম সদস্যপদ লাভ করে।

 

৬৪. কেন্দ্রিয় শহীদ মিনারের স্থপতি কে?

(ক) তানভীর কবীর             (খ) হামিদুর রহমান

(গ) হামিদুজ্জামান               (ঘ) অস্কার বাদল

 

উত্তরঃ (খ) হামিদুর রহমান

ব্যাখ্যাঃ ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারির ভাষা শহীদদের স্মরণে ১৯৫২-এর ২৩ ফেব্রুয়ারি প্রথম শহীদ মিনার স্থাপিত হলেও এর স্থায়িত্ব ছিল কম। তারপর হামিদুর রহমানের নকশা ও পরিকল্পনায় ১৯৫৭ সালের নভেম্বর মাসে দ্বিতীয় বারের মতো শহীদ মিনারের নির্মাণ কাজ শুরু হয় এবং ১৯৫৮ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি উদ্বোধন করা হয় । এরপর বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর পূর্বের নকশা অনুযায়ী শিল্পী হামিদুর রহমান স্থপতি এম এস জাফরের সঙ্গে মিলিতভাবে স্বাধীন বাংলাদেশে কেন্দ্রিয় শহীদ মিনার পুননির্মাণ করেন ।

 

৬৫. জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের প্রথম বাংলাদেশী সভাপতি কে?

(ক) বি এ সিদ্দিকী              (খ) খাজা ওয়াসিউদ্দিন

(গ) হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী       (ঘ) শমসের মবিন চৌধুরী

 

উত্তরঃ (গ) হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী

ব্যাখ্যাঃ হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৩৯ তম অধিবেশনে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন । এ সময় সাধারণ পরিষদের বেশ কটি অধিবেশনে তিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে সভাপতিত্ব করেন। ১৯৮৬ সালের ১৬ ডিসেম্বর তিনি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৪১ তম অধিবেশনের সভাপতির দায়িত্ব লাভ করেন।

 

৬৬. স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদান রাখার জন্য কতজন মহিলাকে বীরপ্রতীক উপাধিতে ভূষিত করা হয়?

(ক) ৫ জন           (খ) ৭ জন            (গ) ২ জন           (ঘ) ৬ জন

 

উত্তরঃ (গ) ২ জন

ব্যাখ্যাঃ বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরত্বসূচক অবদান রাখার জন্য বাংলাদেশ সরকার দুজন মহিলাকে বীরপ্রতীক খেতাবে ভূষিত করে। তারা হচ্ছেন ক্যাপ্টেন সেতারা বেগম (সেনাবাহিনী, ২ নং সেক্টর) এবং মোসাম্মৎ তারামন বেগম (গণবাহিনী, ১১ নং সেক্টর)। ক্যাপ্টেন সেতারা বেগমকে ঐ সময় চিহ্নিত করা হলেও, তারামন বেগমকে দীর্ঘ ২৪ বছর পর ডিসেম্বর ১৯৯৫- এ চিহ্নিত করা হয়। ১৯ ডিসেম্বর ১৯৯৫ তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া আনুষ্ঠানিক ভাবে তারামন বেগমকে বীরপ্রতীক খেতাব প্রদান করেন ।

 

৬৭. কর্মসংস্থান ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয় কোন সনে?

(ক) ১৯৯৫           (খ) ১৯৯৬            (গ) ১৯৯৮           (ঘ) ২০০১

 

উত্তরঃ (গ) ১৯৯৮

ব্যাখ্যাঃ শিক্ষিত বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে ১৯৯৮ সালের ৩০ জুন প্রতিষ্ঠিত হয় কর্মসংস্থান ব্যাংক। এর সদর দপ্তর ঢাকার মতিঝিলে অবস্থিত । এটি রাষ্ট্র পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান । এতে রয়েছে ১৫ সদস্যবিশিষ্টে একটি পরিচালনা পরিষদ। চেয়ারম্যান সরকার কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত থাকবেন। শেয়ার মালিকরা ৫ জন পরিচালক নির্বাচন করতে পারবেন। ৪০০ কোটি টাকা মূলধন নিয়ে এ ব্যাংক যাত্রা শুরু করে ।

 

৬৮. লোকসংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশ বিশ্বের কততম স্থানে?

(ক) ৫তম                        (খ) ৭তম             (গ) ৮তম             (ঘ) ১০তম

 

উত্তরঃ (গ) ৮তম

ব্যাখ্যাঃ UNEPA- এর জনসংখ্যা বিষয়ক রিপোর্ট ২০০৪ অনুযায়ী বাংলাদেশ বিশ্বের ৭ম জনসংখ্যার দেশ এবং UNEPA- এর জনসংখ্যা রিপোর্ট ২০০৫-এ বাংলাদেশের অবস্থান দাঁড়ায় অষ্টমে। সর্বশেষ ২০১৮ সালের UNEPA রিপোর্ট মতে বাংলাদেশ বিশ্বের অষ্টম জনসংখ্যার দেশ।

 

৬৯. সেন্ট মার্টিন দ্বীপের আয়তন কত বর্গ কিলোমিটার?

(ক) ৮                (খ) ১০                (গ) ১২               (ঘ) ১৪

 

উত্তরঃ (ক) ৮

ব্যাখ্যাঃ বঙ্গোপসাগরের উত্তর-পূর্বাংশে অবস্থিত বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মার্টিনের আয়তন ৭ বর্গকিমি। দ্বীপটির স্থানীয় নাম ‘নারিকেল জিঞ্জিরা’।

বিষয়: সাধারণ বিজ্ঞান

৭০. বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন গঠিত হয় কোন সনে?

(ক) ১৯৭২            (খ) ১৯৭৩            (গ) ১৯৭৫           (ঘ) ১৯৯৭

 

উত্তরঃ (খ) ১৯৭৩

ব্যাখ্যাঃ বাংলাদেশের একমাত্র পরমাণু শক্তি গবেষণা ও উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান ১৯৭৩ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হয়।

 

৭১. কোন ইঞ্জিনে কার্বুরেটর থাকে?

(ক) পেট্রোল ইঞ্জিন              (খ) ডিজেল ইঞ্জিন

(গ) রকেট ইঞ্জিন                (ঘ) বিমান ইঞ্জিন

 

উত্তরঃ (ক) পেট্রোল ইঞ্জিন

ব্যাখ্যাঃ মোটর গাড়ির যে প্রকোষ্ঠে বায়ু ও পেট্রোল মিশ্রিত করা হয় তাই হলো কার্বুরেটর। বায়ু ও পেট্রোলের মিশ্রণ তৈরি হওয়ার পরে এটিকে দহন প্রকোষ্ঠে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সব ইঞ্জিনে কার্বুরেটর থাকে না । শুধু পেট্রোল ইঞ্জিনে তিনটি থাকে।

 

৭২. সর্বাপেক্ষা ছোট তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের বিকিরণ হচ্ছে ∑

(ক) আলফা রশ্মি                (খ) বিটা রশ্মি                  (গ) গামা রশ্মি                   (ঘ) রঞ্জন রশ্মি

 

উত্তরঃ (গ) গামা রশ্মি

ব্যাখ্যাঃ তরঙ্গের মধ্যে সমদশায় কম্পনশীল দুটি কণিকার নূন্যতম দূরত্ব হলো তরঙ্গদৈর্ঘ্য। তেজষ্ক্রিয় পদার্থ থেকে উচ্চভেদন ক্ষমতাসম্পন্ন আলফা, বিটা ও গামা রশ্মি বিকিরিত হয়। এদের মধ্যে আলফা ও বিটা রশ্মি হচ্ছে মূলত যথাক্রমে ধনাত্মক ও ঋনাত্মক চার্জযুক্ত কণা, কোনো তরঙ্গ নয়; ফলে এদের কোনো তরঙ্গ দৈর্ঘ্য নেই। অপরদিকে গামা রশ্মি হচ্ছে তড়িৎ চৌম্বক তরঙ্গ যার তরঙ্গ দৈর্ঘ্য 10-11মিটারের কম। আবার রঞ্জন রশ্মিও এক ধরনের তড়িৎ চৌম্বক তরঙ্গ এবং এর তরঙ্গ দৈর্ঘ্য 10-11 মিটার থেকে 10-8 মিটারের মধ্যে, যা গামা রশ্মির তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের তুলনায় বেশি।

 

৭৩. মানুষের হৃৎপিন্ডে কতটি প্রকোষ্ঠ থাকে?

(ক) দুটি             (খ) চারটি            (গ) ছয়টি (ঘ) আটটি

 

উত্তরঃ (খ) চারটি

ব্যাখ্যাঃ মানুষের হৃৎপিন্ড সম্পূর্ণভাবে চারটি প্রকোষ্ঠে বিভক্ত। উপরের দুটি পাতলা প্রাচীরযুক্ত ডান ও বাম অলিন্দ এবং নিচের দুটি পুরু প্রাচীরযুক্ত ডান ও বাম নিলয়।

 

৭৪. প্রেসার কুকারে রান্না তাড়াতাড়ি হয়, কারণ∑

(ক) রান্নার কাজে শুধু তাপ নয় চাপও কাজে লাগে              (খ) বদ্ধ পাত্রে তাপ সংরক্ষিত হয়

(গ) উচ্চচাপে তরলের স্ফুটনাংক বৃদ্ধি পায়                       (ঘ) সঞ্চিত বাষ্পের তাপ রান্নার সহায়ক

 

উত্তরঃ (গ) উচ্চচাপে তরলের স্ফুটনাংক বৃদ্ধি পায়

ব্যাখ্যাঃ প্রেসার কুকারে রান্না তাড়াতাড়ি হওয়ার কারণ উচ্চচাপ প্রয়োগে তরলের স্ফুটনাংক বৃদ্ধি পায়। প্রেসার কুকারে বাষ্পের বহির্গমন নিয়ন্ত্রণ করার মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ চাপ বৃদ্ধির ফলে পানির স্ফুটনাঙ্ক বৃদ্ধি পেয়ে ১৩০ সেন্টিগ্রেড পর্যন্ত পৌঁছে। এ কারণে প্রেসার কুকারে রান্না তাড়াতাড়ি হয়।

 

৭৫. বিলিরুবিন তৈরি হয় ∑

(ক) পিত্তথলিতে                 (খ) কিডনীতে                   (গ) প্লীহায়           (ঘ) যকৃতে

 

উত্তরঃ (গ) প্লীহায়

ব্যাখ্যাঃ বিলিরুবিন হচ্ছে পিত্তরসের কমলা রঙের প্রধান রঞ্জক পদার্থ। হিমোগ্লোবিনের প্রধান দুটি উপাদান∑ প্রোটিন অংশ গ্লোবিন ও লৌহযুক্ত অংশ হিম (heme) । হিম ভেঙে শেষ পর্যন্ত বিলিরুবিনে পরিণত হয়। পিত্তের বর্ণের জন্য দায়ি বিলিরুবিন । বিলিরুবিন তৈরি হয় প্লীহায়। রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা ০.২-০.৮ মিগ্রাম/ডেসিলিটার। রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা বেড়ে যাওয়াকে জন্ডিস বা পান্ডুরোগ বলে।

 

৭৬. মানুষের গায়ের রং কোন উপাদানের উপর নির্ভর করে?

(ক) মেলানিন                    (খ) থায়ামিন

(গ) ক্যারোটিন                   (ঘ) হিমোগ্লোবিন

 

উত্তরঃ (ক) মেলানিন

ব্যাখ্যাঃ মানুষের ত্বকে দুটি স্তর আছে। এর বাহিরেরটি বহিঃত্বক বা ‘এপিডারমিস’ এবং ভেতরেরটিকে বলে অন্তঃত্বক বা ‘ডারমিস’। বহিঃত্বকে আবার কয়েকটি স্তরে ভাগ করা যায়। এর মধ্যে সবচেয়ে ভেতরেরটির নাম ‘স্ট্র্যাটাম বেসাল’ (Stratum basale)। এই স্তরে কতগুলো বিশেষ ধরনের কোষ আছে- এদের বলে ‘মেলানোসাইট’ (Melanocyte)। মেলানোসাইটগুলোর মধ্যে আছে রঞ্জক কণা ‘মেলানিন’। গাঢ় রঙের এই কণাগুলোই ত্বকের কালো রঙের জন্য দায়ি। যাদের ত্বকে মেলানিনের পরিমাণ খুব বেশি তাদের গায়ের রঙ কালো। ত্বকে মেলানিনের পরিমাণ কম থাকলে গায়ের রঙ ফর্সা হয়।

 

৭৭. বাদুড় অন্ধকারে চলাফেরা করে কিভাবে?

(ক) তাক্ষ্ণ দৃষ্টিসম্পন্ন চোখের সাহায্যে    (খ) ক্রমাগত শব্দ উৎপন্নের মাধ্যমে অবস্থান নির্ণয় করে

(গ) সৃষ্ট শব্দের প্রতিধ্বনি শুনে            (ঘ) অলৌকিকভাবে

 

উত্তরঃ (গ) সৃষ্ট শব্দের প্রতিধ্বনি শুনে       

ব্যাখ্যাঃ উচ্চ কম্পাঙ্কের শব্দোত্তর তরঙ্গ সৃষ্টি করে তার প্রতিধ্বনির মাধ্যমে বাদুড় পথ চলে। বাদুড় চলার সময় ক্রমাগত উচ্চ কম্পাঙ্কের শব্দোত্তর তরঙ্গ সৃষ্টি করে এবং সেই শব্দ এটির সামনের বস্তু থেকে প্রতিফলিত হয়ে বাদুড়ের কানে ফিরে আসে। সৃষ্ট শব্দোত্তর তরঙ্গ ও প্রতিধ্বনি শোনার মধ্যবর্তী সময়ের ব্যবধান এবং প্রতিফলিত শব্দের প্রকৃতি থেকে বাদুড় সহজেই প্রতিবন্ধকের অবস্থান ও আকৃতি সম্বন্ধে ধারণা করতে পারে । ফলে পথ চলার সময় বাদুড় সেই প্রতিবন্ধকতা পরিহার করে।

 

৭৮. গাছের খাদ্য তালিকায় আছে∑

(ক) N, P, k, S ও Zn                (খ) Na, P, L, S ও Zn

(গ) N, B, K, S ও Al                 (ঘ) N, P, K, S ও Al

 

উত্তরঃ (ক) N, P, k, S ও Zn

ব্যাখ্যাঃ ১৮৬০ খ্রিস্টাব্দে ম্যাক্স এবং নপ পরীক্ষায় দেখান যে, উদ্ভিদের সার্বিক বৃদ্ধির প্রয়োজনে দশটি খনিজ উপাদান বিশেষ দরকারি। এগুলো হচ্ছে- কার্বন (C), হাইড্রোজেন (H), অক্সিজেন (O), নাইট্রোজেন (N), ফসফরাস (P), পটাশিয়াম (K), ক্যালসিয়াম (Ca), সালফার (S), ম্যাগনেসিয়াম (Mg) এবং লোহা (Fe) । উপরোক্ত প্রশ্নের (ক) তালিকায় সবগুলোই এই দশ প্রকার খনিজের মধ্যে রয়েছে।

 

৭৯. নিচের কোনটি DNA-এর নাইট্রোজেন বেস?

(ক) ইউরাসিল                   (খ) গোয়ানিন

(গ) পিরিডক্সিন                  (ঘ)অ্যাসপারাজিন

 

উত্তরঃ (খ) গোয়ানিন

ব্যাখ্যাঃ DNA অনুতে চার প্রকারের নিউক্লিওটাইড দেখা যায়। নাইট্রোজেনযুক্ত ক্ষারের বিভিন্নতার জন্যই বিভিন্ন প্রকারের নিউক্লিওটাইড গঠিত হয়। কারণ সকল প্রকার নিউক্লিওটাইডে একই প্রকারের শর্করা ও ফসফেট অণু উপস্থিত থাকে। DNA-তে উপস্থিত নাইট্রোজেনযুক্ত ক্ষারগুলো হলো- ‘অ্যাডিনিন’, ‘গুয়ানিন’, সাইটোসিন’ ও থায়ামিন।

 

৮০. নিচের কোনটি পরমাণুর নিউক্লিয়াসে থাকে না?

(ক) meson                  (খ) neutron               (গ) proton                 (ঘ) electron

 

উত্তরঃ (ঘ) electron

ব্যাখ্যাঃ পদার্থের পরমাণুর কেন্দ্রে রয়েছে নিউক্লিয়াস। নিউক্লিয়াস গঠিত হয় প্রোটন (proton) এবং নিউট্রনের (neutron) সমন্বয়ে। ইলেকট্রন, নিউট্রন ও প্রোটনকে কেন্দ্র করে ঘুরতে থাকে। প্রোটনের চার্জ পজেটিভ এবং ইলেকট্রনের চার্জ নেগেটিভ। একটি পরমাণুতে ইলেকট্রন ও প্রোটন সংখ্যা সমান থাকে এজন্য পরমাণু চার্জ নিরপেক্ষ হয়। অপরপক্ষে মেসন (meson) এক ধরনের অস্থিত মৌলিক কণিকা যা কসমিক রশ্মিতে এবং পরমাণু কেন্দ্রের বিভাজনে পাওয়া যায়।

 

বিষয়: আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি

৮১. ২০০৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ বা দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে সর্বপ্রথম কোন হারিকেনটি আঘাত হানে?

(ক) ডেনিস           (খ) ক্যাটরিনা                    (গ) আইভান                     (ঘ) রিটা

 

উত্তরঃ (খ) ক্যাটরিনা

ব্যাখ্যাঃ ২০০৫ সালের ২৯ আগষ্ট যুক্তরাষ্ট্রের সমুদ্র উপকূলবর্তী অঙ্গরাজ্য লুইজিয়ানার ‘গ্র্যান্ড ইল’ এলাকায়  প্রথম আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় ‘ক্যাটরিনা’।

 

৮২. কোন দেশটি স্ক্যানডিনেভিয়ার অন্তর্ভুক্ত নয়?

(ক) ডেনমার্ক        (খ) ফিনল্যান্ড        (গ) নেদারল্যান্ডস               (ঘ) যুক্তরাষ্ট্র

 

উত্তরঃ (গ) নেদারল্যান্ডস, (ঘ) যুক্তরাষ্ট্র

ব্যাখ্যাঃ ‘স্ক্যানডিনেভিয়া’ হচ্ছে ইউরোপ মহাদেশের উত্তরাঞ্চলের একটি এলাকার নাম। স্ক্যানডিনেভিয়া বলতে ৫ টি দেশ বুঝায়। এগুলো হচ্ছে: ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, আইসল্যান্ড, নরওয়ে এবং সুইডেন।

 

৮৩. মুসলমান প্রধান না হয়েও কোন দেশটি ইসলামী সহযোগীতা সংস্থার সদস্য?

(ক) নাইজেরিয়া     (খ) লেবানন          (গ) নাইজার         (ঘ) উগান্ডা

 

উত্তরঃ (ঘ) উগান্ডা

ব্যাখ্যাঃ ওআইসি (Organisation of Islamic Cooperation) মূলত মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশের সংগঠন। উপরিউক্ত দেশগুলোর মধ্যে মুসলমানদের সংখ্যা নাইজেরিয়ায় ৫০.০%, লেবাননে ৫৪.০%, নাইজারে ৯৯.০% এবং উগান্ডা, ক্যামেরুন, বেনিন, মোজাম্বিক, গায়ানা ও সুরিনাম মুসলিম প্রধান না হয়েও ওআইসির সদস্য দেশ।

 

৮৪. কিউবায় ক্ষেপনাস্ত্র সঙ্কটের সময় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট কে ছিলেন?

(ক) রিচার্ড এম নিক্সন                      (খ) জন এফ কেনেডি

(গ) লিন্ডন বেইনস জনসন                  (ঘ) হ্যারি এস ট্রুম্যান

 

উত্তরঃ (খ) জন এফ কেনেডি

ব্যাখ্যাঃ জন এফ কেনেডি ডেমোক্র্যাট দল থেকে নির্বাচিত যুক্তরাষ্ট্রের ৩৫ তম প্রেসিডেন্ট। তিনি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সঙ্কট মোকাবিলা করেন ১৯৬২ সালের কিউবার ক্ষেপনাস্ত্র সংকট। কিউবায় সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ক্ষেপনাস্ত্র মোতায়েন করলে এই সঙ্কটের সৃষ্টি হয়।

 

৮৫. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোন প্রেসিডেন্ট ১২ বছর ক্ষমতায় ছিলেন?

(ক) হ্যারি এস ট্রুম্যান           (খ) ফ্রাঙ্কলিন রুজভেল্ট

(গ) জেমস মনরো               (ঘ) তথ্যটি সঠিক নয়

 

উত্তরঃ (খ) ফ্রাঙ্কলিন রুজভেল্ট

ব্যাখ্যাঃ যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় ছিলেন ডেমোক্র্যাট দল থেকে নির্বাচিত ৩২তম প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন ডি রুজভেল্ট। তিনি তিন মেয়াদে ১৯৩৩ থেকে ১৯৪৫ পর্যন্ত ১২ বছর ক্ষমতায় ছিলেন। তার সময়েই শুরু হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। হ্যারি এস ট্রুম্যান ডেমোক্র্যাট দল থেকে নির্বাচিত যুক্তরাষ্ট্রের ৩৩তম প্রেসিডেন্ট। তিনি ক্ষমতায় ছিলেন ১৯৪৫-১৯৫৩ সাল পর্যন্ত ২ মেয়াদে ৮ বছর। তার আদেশেই হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে পারমাণবিক হামলা চালানো হয়।

 

৮৬. ভারতীয় লোকসভার নির্বাচিত সদস্য সংখ্যা কত?

(ক) ৫৪৩             (খ) ৫৪৫            (গ) ৪১৪              (ঘ) ৫৪০

 

উত্তরঃ (ক) ৫৪৩

ব্যাখ্যাঃ দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট ভারতীয় কেন্দ্রীয় পার্লমেন্টের নিম্নকক্ষের নাম লোকসভা। ভারতের সংবিধান অনুযায়ী লোকসভার আসন সংখ্যা হতে পারবে সর্বোচ্চ ৫৫২। তবে বর্তমান লোকসভার সদস্য সংখ্যা ৫৪৫ । এর মধ্যে নির্বাচিত সদস্য সংখ্যা ৫৪৩ এবং অ্যাংলো-ইন্ডিয়ানদের জন্য সংরক্ষিত ২ টি আসনে রাষ্ট্রপতির মনোনীত অ্যাংলো-ইন্ডিয়ান প্রার্থী প্রতিনিধিত্ব করেন।

 

৮৭. কোন দেশের মহিলারা সর্বপ্রথম ভোটাধিকার লাভ করে?

(ক) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র             (খ) নিউজিল্যান্ড                  (গ) বাহামা          (ঘ) সুইজারল্যান্ড

 

উত্তরঃ (খ) নিউজিল্যান্ড

ব্যাখ্যাঃ বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ১৮৯৩ সালে নিউজিল্যান্ডে নারীর ভোটাধিকার স্বীকৃত হয়। ভোটাধিকার প্রাপ্তির শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে এ দেশে ১৯৯৩ সালে রাজনৈতিক দলে নেতৃত্বের আনুপাতিক আইন পাশ হয়। এই আইনে নিউজিল্যান্ডে পার্লামেন্টে নারীর ৩০ ভাগ আসন নিশ্চিত করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রে মহিলারা ভোটাধিকার লাভ করে ১৯২০ সালে।

 

৮৮. রাসায়নিক অস্ত্র চুক্তি নুমো (Chemical Weapons Convention) কোন সালে স্বাক্ষরিত হয়?

(ক) ১৯৯০            (খ) ১৯৯৩            (গ) ১৯৯৬           (ঘ) ১৯৯৯

 

উত্তরঃ (খ) ১৯৯৩

ব্যাখ্যাঃ ১৯৯৩ সালে রাসায়নিক অস্ত্র কনভেনশন (Chemical Weapons Convention) স্বাক্ষরিত হয়। এ চুক্তিতে রাসায়নিক অস্ত্রের উন্নয়ন, উৎপাদন, মজুদ ও ব্যবহার নিষিদ্ধ করা ও এসব ধ্বংস করার ব্যবস্থা রয়েছে। এই চুক্তি ১৯৯৭ সাল থেকে কার্যকর করা হয়েছে।

 

৮৯. কোন পরিষদের সুপারিশক্রমে জাতিসংঘে নতুন সদস্য গ্রহণ করা হয়?

(ক) অছি পরিষদ                (খ) সাধারণ পরিষদ

(গ) নিরাপত্তা পরিষদ            (ঘ) অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ

 

উত্তরঃ (গ) নিরাপত্তা পরিষদ 

ব্যাখ্যাঃ জাতিসংঘে নতুন সদস্য গ্রহণ করা হয় সাধারণ পরিষদের সদস্যদের ভোটের মাধ্যমে। তবে চূড়ান্তভাবে সদস্য গ্রহণের পূর্বে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সুপারিশের প্রয়োজন হয়।

 

৯০.কোন মুসলিম মনীষী সর্বপ্রথম নোবেল পুরস্কার পান?

(ক) ইয়াসির আরাফাত         (খ) নাগীব মাহফুজ

(গ) আনোয়ার সাদাত            (ঘ) প্রফেসর আব্দুস সালাম

 

উত্তরঃ (গ) আনোয়ার সাদাত

ব্যাখ্যাঃ ১৯৭৮ সালে মিশরের প্রেসিডেন্ট আনোয়ার সাদাত প্রথম মুসলিম হিসেবে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। পাকিস্তানের প্রফেসর আবদুস সালাম পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার পান ১৯৭৯ সালে। মিশরের নাগীব মাহফুজ সাহিত্যে ১৯৮৮ সালে এবং ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট ইয়াসির আরাফাত ১৯৯৪ সালে শান্তিতে এই পুরস্কার লাভ করেন।

 

৯১. বাদশা ফাহাদের পর সৌদি বাদশা কে হন?

(ক) খালেদ           (খ) ফয়সাল          (গ) আব্দুল আজিজ             (ঘ) আবদুল্লাহ

 

উত্তরঃ (ঘ) আবদুল্লাহ

ব্যাখ্যাঃ ১ আগষ্ট, ২০০৫ বাদশা ফাহাদ বিন আব্দুল আজিজের মৃত্যুর পর নতুন বাদশা হন তার বৈমাত্রেয় ভাই যুবরাজ আবদুল্লাহ বিন আব্দুল আজিজ এবং নতুন ক্রাউন প্রিন্স মনোনীত হন প্রায়াত বাদশার আপন ভাই ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রী সুলতান বিন আব্দুল আজিজ। উল্লেখ্য, বাদশাহ আবদুল্লাহ (২৩ জানুয়ারি ২০১৫) মারা যাওয়ার পর নতুন বাদশাহ হিসেবে সিংহাসনে বসেন সালমান বিন আবদুল আজিজ।

 

৯২. অক্সফাম (Oxfam)- এর সদর দপ্তর কোথায়?

(ক) নিউইয়র্ক        (খ) ক্যামেনিক্স      (গ) লন্ডন            (ঘ) হেগ

 

উত্তরঃ (গ) লন্ডন

ব্যাখ্যাঃ অক্সফাম (Oxfam) ব্রিটেনের বিখ্যাত আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী দাতব্য সংস্থা। ১৯৪২ সালে প্রতিষ্ঠিত সংস্থাটির সদর দপ্তর লন্ডনে অবস্থিত।

 

৯৩. কোনটি বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে উপনিবেশবাদের নিগড় থেকে ‍মুক্ত হয়?

(ক) হংকং           (খ) শ্রীলংকা         (গ) ম্যাকাউ         (ঘ) বাংলাদেশ

 

উত্তরঃ (গ) ম্যাকাউ       

ব্যাখ্যাঃ বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে পর্তুগালের উপনিবেশ ‘ম্যাকাউ’ ১৯৯৯ সালের ১৯ ডিসেম্বর মধ্য রাতে চীনের কাছে হস্তান্তর করে এবং ২০ ডিসেম্বর থেকে ম্যাকাউর ওপর চীনের পূর্ণ কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়। ব্রিটিশ উপনিবেশ হংকং চীনের কাছে হস্তান্তর করা হয় ১৯৯৭ সালের ৩০ জুন মধ্যরাতে।

 

৯৪. নিচের কোন চুক্তিটি যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে অনুমোদিত হয়টি?

(ক) এবিএম চুক্তি (ABM)              (খ) সল্ট-১ চুক্তি (SALT-1)

(গ) সল্ট-২ চুক্তি (SALT-2)           (ঘ) স্টার্ট-২ চুক্তি (START-2)

 

উত্তরঃ (ঘ) স্টার্ট-২ চুক্তি (START-2)

ব্যাখ্যাঃ ABM Treaty (Anti Ballistic Missile) ১৯৭২ সালের ৩ আগষ্ট সিনেটে অনুমোদিত হয়। SALT-1 (Strategic Arms Limitation Talks) ৩০ সেপ্টেম্বর ১৯৭২ মার্কিন সিনেটে অনুমোদন লাভ করে। ১৮ জুন ১৯৭৯ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টার ও সোভিয়েত প্রেসিডেন্ট লিওনিদ ব্রেজনভের মধ্যে স্বাক্ষরিত হয় SALT-2 চুক্তিটি মার্কিন সিনেটে অনুমোদন লাভ করেনি। START-2 (Strategic Arms Reduction Treaty) চুক্তি মার্কিন সিনেটে অনুমোদিত হয় ২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৯৭ ।

 

৯৬. START-2 কি?

(ক) টিভিতে সম্প্রচারিত একটি সিরিয়াল            (খ) বাণিজ্য সংক্রান্ত একটি চুক্তি

(গ) কৌশলগত অস্ত্র হ্রাস সংক্রান্ত চুক্তি                (ঘ) এর কোনোটিই নয়

 

উত্তরঃ (গ) কৌশলগত অস্ত্র হ্রাস সংক্রান্ত চুক্তি

ব্যাখ্যাঃ ১৯৯৩ সালের ৩ জানুয়ারি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে পারমাণবিক অস্ত্র বিশেষত দূর পাল্লার পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র আগামী ১০ বছরের মধ্যে (১৯৯৩-২০০২) দুই-তৃতীয়াংশ হ্রাস করার লক্ষ্যে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। রাশিয়ার মস্কোতে এ চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে স্বাক্ষর করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জর্জ জুশ (সিনিয়র) এবং রাশিয়ার পক্ষে স্বাক্ষর করেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বরিস ইয়েলেৎসিন।

 

৯৭. আসিয়ান রিজিওনাল ফোরাম (ARF)- এর সদস্য সংখ্যা কত?

(ক) ২১               (খ) ২২              (গ) ২৩             (ঘ) ২৬

 

উত্তরঃ (ঘ) ২৬

ব্যাখ্যাঃ ARF-এর বর্তমান সদস্য সংখ্যা ২৭। সর্বশেষ সদস্য পদ লাভ করে শ্রীলংকা ২০০৭ সালের ১ আগষ্ট। আসিয়ান রিজিওনাল ফোরামের (এআরএফ) ২৬ তম সদস্য দেশ বাংলাদেশ। ২০০৬ সালের ২৮ জুলাই বাংলাদেশ সদস্যপদ লাভ করে। ARF প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৯৪ সালের ২৫ জুলাই। এর সদর দপ্তর ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায়।

 

৯৮. মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ কত বছর ক্ষমতায় ছিলেন?

(ক) ২১ বছর         (খ) ২২ বছর        (গ) ২৪ বছর        (ঘ) ২৫ বছর

 

উত্তরঃ (খ) ২২ বছর

ব্যাখ্যাঃ ১৯৮১ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ২২ বছর ক্ষমতায় থাকার পর স্বেচ্ছায় পদত্যাগের পর বিশ্বে তিনি মহান নেতা হিসেবে সম্মানিত হচ্ছেন। তিনি তার মেধা, প্রজ্ঞাকে কাজে লাগিয়ে ৭০ দশকের কৃষিপ্রধান দরিদ্র মালয়েশিয়াকে শিল্পভিত্তিক মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করে বিশ্বে ঈর্ষণীয় সাফল্য দেখিয়েছেন। ১০ মে ২০১৮ তিনি পুনরায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন ।

 

৯৯. বাংলাদেশ কত সালে ইসলামী সম্মেলন সংস্থার সদস্যপদ লাভ করে?

(ক) ১৯৭২ সালে                (খ) ১৯৭৩ সালে

(গ) ১৯৭৪ সালে                 (ঘ) ১৯৭৫সালে

 

উত্তরঃ (গ) ১৯৭৪ সালে

ব্যাখ্যাঃ ১৯৭৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের লাহোরে অনুষ্ঠিত ওআইসির দ্বিতীয় শীর্ষ সম্মেলনে বাংলাদেশ সদস্যপদ লাভ করে। কমনওয়েলথ, ন্যাম, আইএমএফ, আইএলও, ইউনেস্কো প্রভৃতি সংস্থার সদস্যপদ বাংলাদেশ লাভ করে ১৯৭২ সালে। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ FAO, WMO UPU এর সদস্যপদ লাভ করে। উল্লেখ্য, ২৮ জুন ২০১১ ইসলামী সম্মেলন সংস্থার নাম পরিবর্তন করে ইসলামী সহযোগীতা সংস্থা রাখা হয়।

 

১০০. ইরাকের বর্তমান প্রেসিডেন্ট জালাল তালাবানি কোন সম্প্রদায়ের?

(ক) সুন্নি             (খ) শিয়া            (গ) কুর্দি             (ঘ) খ্রিষ্টান

 

উত্তরঃ —–

Note: ইরাকের বর্তমান প্রেসিডেন্ট বারহাম সালিহ কুর্দি সমপ্রদায়ের। ২০১৮ সালের ২ অক্টোবর তিনি দায়িত্ব গ্রহন করেন। দেশটির বর্তমান প্রধানমন্ত্রী আদেল আবদুল মাহদি শিয়া সম্প্রদায়ের।

 

 

No comments found.