Engineer's Solutions

The Site is Engineering and Science Related

১০তম বিসিএস প্রিলিমিনারি টেস্ট

বিষয়ঃ বাংলা

 

১। ‘আনারস’ এবং ‘চাবি’ শব্দ দুটি বাংলা ভাষা গ্রহণ করেছে-

(ক) পর্তুগিজ ভাষা হতে   (খ) আরবি ভাষা হতে

(গ) দেশী ভাষা হতে       (ঘ) ওলন্দাজ ভাষা হতে

 

উত্তর: (ক)পর্তুগিজ ভাষা হতে  

ব্যাখ্যা: আনারস, চাবি, আলপিন, আলমারি, গুদাম, পাউরুটি, বালতি এ রকম শতাধিক বা তার বেশি পর্তুগিজ শব্দ রয়েছে বাংলা ভাষায়।

 

২। শুদ্ধ বানান কোনটি?

(ক) মূমুর্ষু               (খ) মুমূর্ষু

(গ) মূমূর্ষ              (ঘ) মুমূর্ষ

 

উত্তর: (খ) মুমূর্ষু

 

৩। গুরুচণ্ডালী দোষমুক্ত কোনটি?

(ক) শব পোড়া    (খ) মড়া দাহ

(গ) শবদাহ         (ঘ) শবমড়া

 

উত্তর: (গ) শবদাহ

ব্যাখ্যা: তৎসম শব্দের সাথে দেশীয় শব্দের প্রয়োগে কখনো কখনো গুরু্চণ্ডালী দোষ সৃষ্টি হয়। এ দোষে দুষ্ট শব্দ তার যোগ্যতা হারায়। শব পোড়া- শব (তৎসম শব্দ) + পোড়া (দেশি শব্দ। মড়া দাহ – মড়া (দেশি শব্দ) + দাহ (তৎসম শব্দ) । শবদাহ- শব (তৎসম শব্দ) + দাহ (তৎসম শব্দ)। + শব মড়া- শব

(তৎসম শব্দ) + মড়া (দেশি শব্দ) । অতএব, খুবই সহজেই বুঝা যাচ্ছে শবদাহ গুরুচণ্ডালী দোষমুক্ত।

 

৪। ‘কবর’ নাটকটির লেখক-

(ক) জসীমউদ্‌দীন(খ) নজরুল ইসলাম

(গ) মুনীর চৌধুরী       (ঘ) দ্বিজেন্দ্রলাল রায়

 

উত্তর:(গ) মুনীর চৌধুরী

ব্যাখ্যা: ‘কবর’ নাটকের রচয়িতা নাট্যকার মুনীর চৌধুরী। ’৫২ এর ভাষা আন্দোলনের উপর ভিত্তি করে নাটকটি রচিত। ১৯৫৩ সালে তিনি জেলে বসে নাটকটি রচনা করেন। ‘কবর’ কবিতার রচয়িতা জসীমউদ্‌দীন। কবিতাটি ‘রাখালী’ কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত।

 

৫। ‘উভয়কূল রক্ষা’ অর্থে ব্যবহৃত প্রবচন কোনটি?

(ক) কারো পৌষ মাস, কারো সবর্নাশ

(খ) চাল না চুলো, ঢেঁকী না কুলো

(গ) সাপও মরে, লাঠিও না ভাঙ্গে

(ঘ) বোঝার উপর, শাকের আঁটি

 

উত্তর: (গ) সাপও মরে, লাঠিও না ভাঙ্গে

ব্যাখ্যা: ‘কারো পৌষমাস কারও সবর্নাশ’ অর্থ কারও সুদিন কারও দুর্দিন। ‘চাল না চুলো’ ঢেকী না কুলো’ অর্থ নিতান্ত গরিব। ‘সাপও মরে লাঠিও না ভাঙ্গে, অর্থ উভয়কূলে রক্ষা। ‘বোঝার উপর শাকের আটি, অর্থ অতিরিক্তের অতিরিক্ত।

 

৬। শুদ্ধ বাক্য কোনটি?

(ক) দুর্বলবশত অনাথিনী বসে পড়ল

(খ) দুর্বলতাবশতঃ অনাথিনী বসে বসে পড়ল

(গ) দুর্বলতাবশত অনাথা বসে পড়ল

(ঘ) দুর্বলবশত অনাথা বসে পড়ল

 

উত্তর: (গ) দুর্বলতাবশত অনাথা বসে পড়ল

ব্যাখ্যা: অনাথ শব্দের স্ত্রীলিঙ্গ অনাথা। বতর্মান বানান রীতি অনুসারে শব্দের শেষে ‘:’ বসে না। তাই ‘দুর্বলতাবশত’ এর শুদ্ধরুপ ‘দুর্বলতাবশত’।

 

৭। ক্রিয়া পদের মূল অংশকে বলা হয়-

(ক) বিভক্তি      (খ) ধাতু

(গ) প্রত্যয়        (ঘ) কৃৎ

 

উত্তর: (খ) ধাতু

ব্যাখ্যা: বাক্যস্থিত একটি শব্দের সঙ্গে অন্য শব্দের অন্বয় সাধনের জন্য শব্দের সঙ্গে যে সকল বর্ণ যুক্ত হয়, তাদের বিভক্তি বলে। ক্রিয়াপদের মূল অংশকে বলা হয় ধাতু। যেমন- করা এর ধাতু কর; পড়া এর ধাতু পড়ু। যে বর্ণ বা বর্ণসমষ্টি ধাতু বা প্রাতিপাদিকের পর যুক্ত হয়ে নতুন শব্দ গঠন করে, তাকে প্রত্যয় বলে। প্রত্যয় দুই প্রকার কৃৎপ্রত্যয় ও তদ্ধিত প্রত্যয় । ক্রিয়াবাচক শব্দের সাথে যুক্ত হয় কৃৎ প্রত্যয় ।

 

৮। ‘রত্নাকর’ শব্দটির সন্ধি বিচ্ছেদ-

(ক) রত্না+কর         (খ) রত্ন+কর

(গ)  রত্না+ আকার    (ঘ) রত্ন+ আকর

 

উত্তর: (ঘ) রত্ন+আকর

ব্যাখ্যা: অ-কার কিংবা আ-কারের পর অ-কার কিংবা আ-কার থাকলে উভয়ে মিলে আ-কার হয়। আ-কার পূর্ববর্তী ব্যঞ্জনের সাথে যুক্ত হয়। অ+আ=আ ।

 

৯। কোন দ্বিরুক্ত শব্দজুটি বহুবচন সংকেত করে?

(ক) পাকা পাকা আম      (খ) ছি ছি কি করছ

(গ) নরম নরম হাত        (ঘ) উড়ু উড়ু মন

 

উত্তর: (ক) পাকা পাকা আম    

ব্যাখ্যা: বহুবচন নির্দেশক: পাকা পাকা আম। তীব্রতা বা সঠিকতা বোঝাতে: গরম গরম জিলাপী । নরম নরম হাত । সামান্যতা বোঝাতে: উড়ু উড়ু ভাব। ভাবের গভীরতা বোঝাতে: ছি ছি, তুমি এ কি করছ?

 

১০ । কোন প্রবচন বাক্য ব্যবহারিক দিক হতে সঠিক?

(ক) যত গর্জে তত বৃষ্টি হয় না

(খ) অধিক সন্ন্যাসীতে গাজন নষ্ট

(গ) নাচতে না জানলে উঠোন ভাঙ্গা

(ঘ) যেখানে বাঘের ভয় সেখানে বিপদ হয়।

 

উত্তর: (খ) অধিক সন্ন্যাসীতে গাজন নষ্ট

 

১১। বাংলায় টিএস এলিয়টের কবিতার প্রথম অনুবাদক-

(ক) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর   (খ) বিষ্ণু দে

(গ) সুধীন্দ্রনাথ দত্ত  (ঘ) বুদ্ধদেব বসু

 

উত্তর: (ক) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

ব্যাখ্যা: রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সবর্প্রথম টিএস এলিয়টের কবিতা বাংলায় অনুবাদ করেন। এ দেশের কবিদের আধুনিক কবিতার সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়ার জন্য তিনি এ অনুবাদ করেছিলেন । বিষ্ণু দে ১৯৫০ সালে এলিয়টের কবিতা অনুবাদ করেন। বুদ্ধদেব বসুও টিএস এলিয়টের কবিতার অনুবাদ ‘এলিয়টের কবিতা’ নামে প্রকাশ করেন।

 

১২। ‘অগ্নিবীণা’ কাব্যগ্রন্থে সংকলিত প্রথম কবিতা-

(ক) অগ্রপথিক    (খ) বিদ্রোহী

(গ) প্রলয়োল্লাস   (ঘ) ধূমকেতু

 

উত্তর: (গ) প্রলয়োল্লাস

ব্যাখ্যা: ‘অগ্নিবীণা’ কাজী নজরুল ইসলাম রচিত প্রথম কাব্যগ্রন্থ। এতে মোট ১২টি কবিতা রয়েছে। ‘প্রলয়োল্লাস’ কাব্যগন্থের প্রথম কবিতা, ‘বিদ্রোহী’ কাব্যগ্রন্থের দ্বিতীয় কবিতা, ‘রক্তাম্বরধারিনী মা’ তৃতীয় কবিতা

 

১৩। ‘শেষের কবিতা’ রবীন্দ্রনাথ রচিত-

(ক) কবিতার নাম

(খ) গল্প সংকলনের নাম

(গ) উপন্যাসের নাম

(ঘ) কাব্য সংকলনের নাম

 

উত্তর: (গ) উপন্যাসের নাম

ব্যাখ্যা: ‘শেষের কবিতা’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উপন্যাস। এর প্রধান চরিত্র হলো অমিত, লাবণ্য, কেতকী রায়।

 

১৪। কোন বাক্যে ‘মাথা’ শব্দটি বুদ্ধি অর্থে ব্যবহৃত?

(ক) তিনিই সমাজের মাথা

(খ) মাথা খাটিয়ে কাজ করবে

(গ) লজ্জায় আমার মাথা কাটা গেল

(ঘ) মাথা নেই তার মাথা ব্যথা

 

উত্তর: (খ) মাথা খাটিয়ে কাজ করবে

ব্যাখ্যা: অবহেলা অর্থে: মাথা নেই আবার মাথা ব্যথা। মোড়ল/প্রধান অর্থে: তিনিই সমাজের মাথা । বুদ্ধি অর্থে: মাথা খাটিয়ে কাজ করবে। সম্মানহানি অর্থে: লজ্জায় মাথা কাটা গেল।

 

১৫। কোন শব্দে বিদেশি উপসর্গ ব্যবহৃত হয়েছে?

(ক) নিখুঁত          (খ) আনমনা

(গ) অবহেলা        (ঘ) নিমরাজী

 

উত্তর: (ঘ) নিমরাজী

ব্যাখ্যা: নিখুঁত- এখানে নি বাংলা উপসর্গ; আনমনা- এখানে আন বাংলা উপসর্গ; অবহেলা- এখানে অব তৎসম উপসর্গ। নিমরাজী – এখানে নিম ফারসি উপসর্গ।

 

১৬। ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো ২১শে ফেব্রুয়ারি’র রচয়িতা কে?

(ক) শামসুর রাহমান

(খ) আলতাফ মাহমুদ

(গ) হাসান হাফিজুর রহমান

(ঘ) আব্দুল গাফ্‌ফার চৌধুরী

 

উত্তর: (ঘ) আব্দুল গাফ্‌ফার চৌধুরী

ব্যাখ্যা: ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ বিখ্যাত এ গানটি মূলত সাংবাদিক আব্দুল গাফ্‌ফার চৌধূরী রচিত একটি কবিতা। কবিতাটি প্রথম প্রকাশিত হয় হাসান হাফিজুর রহমান সম্পাদিত ‘একুশে ফেব্রুয়ারি’ (১৯৫৩) গ্রন্থে। পরে এটি গানের রুপ নেয়। গানটির প্রথম সুরকার ছিলেন আব্দুল লতিফ। বর্তমান সুরকার আলতাফ মাহমুদ । প্রথম পর্যায়ে গানটির শিল্পী ছিলেন আব্দুল লতিফ, বর্তমানে সমবেত কন্ঠে গাওয়া হয়।

 

১৭। কোনটি তদ্ভব শব্দ?

(ক) চাঁদ          (খ) সূর্য

(গ) নক্ষত্র        (ঘ) গগন

 

উত্তর: (ক) চাঁদ

ব্যাখ্যা: এখানে সূর্য, গগন, নক্ষত্র তৎসম শব্দ আর চাঁদ তদ্ভব শব্দ। যেসব শব্দের মূল সংস্কৃত শব্দে পাওয়া যায়, কিন্তু ভাষার স্বাভাবিক বিবর্তন ধারায় প্রাকৃতের মধ্য দিয়ে বাংলা ভাষায় স্থান করে নিয়েছে, সেসব শব্দকে তদ্ভব শব্দ বলে। যেমন- সংস্কৃত – হস্ত >প্রাকৃত- হথু> তদ্ভব- হাত ।

 

১৮। বাংলায় কোরআন শরীফের প্রথম অনুবাদক কে?

(ক) কেশব চন্দ্র সেন

(খ) গিরিশচন্দ্র সেন

(গ) মাওলানা মনিরুজ্জামান ইসলামাবাদী

(ঘ) মওলানা আকরাম খাঁ

 

উত্তর: (খ) গিরিশচন্দ্র সেন

ব্যাখ্যা: ভাই গিরিশচন্দ্র সেন ১৮৮১-৮৬ পযর্ন্ত ছয় বছরের সাধনা ও পরিশ্রমে টীকাসহ কুরআন শরীফের প্রথম বঙ্গানুবাদ করেন। ১৮৩৫ সালে নারায়নগঞ্জ জেলার পাঁচদোনা গ্রামে জম্মগ্রহণকারী গিরিশচন্দ্র সেন ১৮৭১ সালে ব্রাক্ষ ধর্মে দীক্ষা লাভ করেন।

 

বিষয়ঃ ইংরেজী

১৯। Choose the correct alternative to complete the sentence? `He- to see us if he had been able to;

(ক)  Would come

(খ)  Would have come

(গ)   May have come

(ঘ)  May come

 

উত্তর: (খ) would have come

ব্যাখ্যা: lf যুক্ত clause- টিতে past perfect tense থাকলে অন্য clause- এ would/could/ might+have+verb (pp) form হয়।

 

২০। Choose the appropriate alternative to complete the sentence. `He had a – of fever’

(ক)  Strong attack

(খ)  Sevre attack

(গ)   Serious kind

(ঘ)   Bad attack

 

উত্তর: (খ)sevre attack

ব্যাখ্যা:strong – প্রবল, শক্তিশালী । কিন্তু এ শব্দটি সাধারণত ব্যক্তির সাথে কিংবা ব্যক্তিবাচক দোষ-গুণের সাথে বসে থাকে। আবার severe কঠোর, প্রবল, প্রচন্ড, তীব্র (এ শব্দটি বিশেষ ভাবে আবহাওয়াগত বৈশিষ্ট্য ও রোগের তীব্রতা প্রকাশে ব্যবহৃত হয়) আবার serious গম্ভীর, রাশভারী, চিন্তাশীল। শব্দটির ২নং অর্থ হচ্ছে গুরুতর, সঙ্গীন ইত্যাদি শব্দটির সাথে রোগ বা এ ধরনের বিষয়ের কোন সংযুক্তি নেই । bad- মন্দ, দুষ্ট, খারাপ, অন্যায়। অর্থগত বৈশিষ্ট্য থেকে লক্ষণীয় যে, শব্দটি অসুখের তীব্রতা প্রকাশে অক্ষম ।

 

২১। Choose the correct sentence.

(ক) I asked Javed had he passed

(খ) I asked Javed if he had passed

(গ) I asked Javed if you had passed

(ঘ) I asked Javed that had he passed

 

উত্তরঃ(খ) I asked Javed if he passed

ব্যাখ্যা: আমি জাবেদকে জিজ্ঞাসা করলাম যে, সে পাস করেছে কি না- বাক্যটিতে দুটি Clause রয়েছে। (1) I asked Javed. (2) He had passed. উভয়কে যুক্ত করার জন্যif শব্দটি connector হিসেবে বসেছে। এখন (a) ‘if’ শব্দটি না থাকায় একে বাদ দেয়া যায়। (b) তে if দ্বারা দুটি Clause সঠিকভাবে যুক্ত হয়েছে। (c) তে `He’ স্থলে ‘you’ ব্যবহার করা হয়েছে, (you) শব্দটি জাভেদকে বোঝায় না বলে এটিও গ্রহণযোগ্য নয়। কেননা, অনিশ্চয়তা সব সময় if/whether দ্বারা প্রকাশিত হয়।

 

২২। Choose the correct sentence.

(ক) A few of the three boys got a prize

(খ) Each of the three boys got a prize

(গ) Every of the three boys got a prize

(ঘ) All of the three boys got a prize

 

উত্তর: (খ)Eachof the three boys got a prize

ব্যাখ্যা: (ক) গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ afew অর্থ মাত্র কয়েকজন: এরপর the three boys অর্থ দাঁড়ায় তিনজনের মাত্র কয়েকজন তাই choice টি অগ্রহণযোগ্য। (খ) Each of the three boys-তিন জনের প্রত্যেক। এটি নেয়া যেতে পারে। (গ) Every of the three boys- বালক তিনটির সকলে/সবাই (১টি পুরষ্কার পেলো)। কিন্তু সবাই মিলে তো ১টি পুরষ্কার পাওয়া যায় না। তাই এটি সঠিক নয়। (ঘ) ‘All of the three boys’ choice টি ও সঠিক কিন্তু বাক্যের শেষে a prize থাকায় বর্জনীয়। কারণ তারা তিনজন মিলে একটি পুরষ্কার পায় না। সুতরাং সঠিক উত্তর (খ)।

 

২৩। Choose the correct sentence.

(ক) The man that said that was a fool

(খ) The man who said that was a fool

(গ) The man that said that was a fool

(ঘ) The man which said that was a fool

 

উত্তরঃ (খ)The man who said that was a fool

ব্যাখ্যা: ঐ লোকটি {যে উহা (that) বলেছে} ছিল একজন বোকা অর্থে সঠিক উত্তর (খ)।

 

২৪। Choose the correct answer. How long did you wait?

(ক) Till lunch time

(খ) Till he came

(গ) Until six o`clock

(ঘ) Since this morning

 

উত্তর: (খ) Till he came

 

২৫। What will be the correct preposition to complete the sentence? I am not bad – tennis;

(ক)  in(খ)  at

(গ) about(ঘ)   with

 

উত্তর:(খ) at

ব্যাখ্যা: কোনো বিষয়ে ভালো বা দক্ষ হলে। হয়। Good at । তদ্রুপ কোনো বিষয়ে খারাপ হলে সেক্ষেত্রে হয় bad at।

 

২৬। What is the ‍antonym of ‘gentle’?

(ক)harsh(খ)  modest

(গ) clever(ঘ) rude

 

উত্তরঃ (ঘ) rude

ব্যাখ্যা: Gentle- ভদ্র, নম্র, শান্ত। choice, (ক) Harsh-কর্কশ, অমসৃণ (বিশেষত বস্তুর সাথে) (খ) Modest- বিনয়ী, নম্র। (গ) Clever- চতুর, চালাক। (ঘ) Rude-অভদ্র, অমার্জিত, রুঢ়।অতএব সঠিক উত্তর (ঘ)

 

২৭। What is the synonym of ‘Jovial’?

(ক)  Jolly(খ) Gay

(গ) Jealous (ঘ) Happy

 

উত্তর: (ক) Jolly

ব্যাখ্যা: Jouial-হাসিখুশি, আমুদে, আনন্দপূর্ণ, আনন্দচিত্ত। choice (ক) Jolly-প্রফুল্ল, সুন্দর। (খ) Gay-আনন্দচিত্ত, হাসিখুশি,প্রফুল্ল। (গ) Jealous-ঈর্ষাকাতর, হিংসুক, পরশ্রীকাতর। (ঘ)   Happy-সুখী, সন্তুষ্ট।

 

২৮। What is the synonym of `Competent’?

(ক)  Circumspect

(খ)  Discrete

(গ)  Capable

(ঘ)  Prudent

 

উত্তরঃ (গ) Capable

ব্যাখ্যা:Competent- উপযুক্ত, সক্ষম, দক্ষ। choice (ক) Circumspect-সর্তক। (খ) Discrete – পৃথক, আলাদা। (গ)   Capable- সক্ষম, সমর্থ। (ঘ)   prudent- সর্তক, দুরদর্শী, বিচক্ষণ। কাজেই সঠিক উত্তর (গ)

 

২৯। Who is the author of `A Farewell to Arms’?

(ক) H.G.Wells

(খ) George Orwel

(গ) Thomas Hardy

(ঘ)  Ernest Hemingway

 

উত্তর: (ঘ) Ernest Hemingway

ব্যাখ্যা: Ernest Hemingway ` A Farewell to Arms’ উপন্যাসটি লেখেন । এ উপন্যাসে যুদ্ধাবস্থায় নরনারীর প্রেমের সংকটকে ব্যাপকভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়।

 

৩০। Who is the author of ` Animal Farm’?

(ক) Thomas More

(খ)  George Orwel

(গ)  Boris Pasterak

(ঘ)  Charles Dickens

 

উত্তর: (খ) George Orwel

ব্যাখ্যা: Eric Arthur Blair (1903-1950) – এর pen name ছিল George Orwell.  তিনি ভারতের বর্তমান বিহারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। পরে তিনি ব্রিটিশ নাগরিকত্ব লাভ করেন। তার উল্লেখযোগ্য অবদান হলো `Animal Farm’ (1945) ও Nineteen Eighty-Four’ (1949) নামের দুটি উপন্যাস।

 

৩১। Who is the author of ` India Wins Freedom’?

(ক) Mahatma Gandhi

(খ)  J.L. Nehru

(গ)  Abul Kalam Azad

(ঘ)  Moulana Akram khan

 

উত্তর: (গ) Abul Kalam Azad

ব্যাখ্যা: `India Wins Freedom’ আবুল কালাম আজাদ রচিত একটি ঐতিহাসিক গ্রন্থ তিনি এ গ্রন্থে ব্রিটিশ আমলে ভারতীয় উপমহাদেশের বিভিন্ন সমস্যা, ঘটনা এবং কিভাবে, কখন ভারত স্বাধীনতা অর্জন করে তা বিস্তারিতভাবে বণর্না করেছেন।

 

৩২। What kind of noun is ‘Cattle’?

(ক) Proper       (খ) Common

(গ) Collective (ঘ) Material

 

উত্তর:(গ)Collective

ব্যাখ্যা: Cattle- গবাদি পশু (একত্রে সকল ধরনের পশু, গরু, ছাগল, মহিষ ইত্যাদি) । অতএব এটি একটি Collective Noun বা সমষ্টিবাচক বিশেষ্য।

সুতরাং সঠিক উত্তর (গ)।

 

৩৩। What kind of noun is `Girl’?

(ক) Proper         (খ) Common

(গ)  Collective(ঘ) Material

 

উত্তর (খ)Common

ব্যাখ্যা:  Girl- মেয়ে। এখানো Girl কোন বিশেষ মেয়েকে না বুঝিয়ে সাধারণভাবে সকল মেয়েকে বোঝায়। সুতরাং এটি একটি Common Noun।

 

৩৪। What is the meaning of ` White Elephant’?

(ক) An elephant of white colour

(খ)  A very coslty or troublesome possession

(গ) A black marketer

(ঘ) A hoarder

 

উত্তর (খ)A very coslty or troublesome possession

ব্যাখ্যা: White Elephant- কাজে আসে না অথচ দামি ও অসুবিধাজনক।

 

বিষয়ঃ সাধারণ জ্ঞান

৩৫। বাংলাদেশ গণপ্রজাতন্ত্রের ঘোষণা ছিল-

(ক) ১৭ এপ্রিল, ১৯৭১

(খ) ২৬মার্চ, ১৯৭১

(গ) ১১ এপ্রিল, ১৯৭১

(ঘ) ১০ জানুয়ারি ১৯৭২

 

উত্তর: (ক) ১৭ এপ্রিল, ১৯৭১

ব্যাখ্যা: মুজিবনগরে ১০ এপ্রিল ১৯৭১ অস্থায়ী সরকার গঠিত হয়। এখানে ১৭ এপ্রিল, ১৯৭১ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার শপথ গ্রহণ করে। ঘোষণা পত্রে স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশ গণপরিষদের ক্ষমতাবলে ও তদধীনে যথাযথভাবে ক্ষমতাপ্রাপ্ত প্রতিনিধি অধ্যাপক এম ইউসুফ আলী। তিনিই ঘোষণাপত্রটি পাঠ করেন।

 

৩৬। গণপ্রজান্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান প্রবর্তিত হয়-

(ক) ১৭ এপ্রিল, ১৯৯১

(খ) ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭২

(গ) ৭ মার্চ, ১৯৭২

(ঘ) ২৬ মার্চ ১৯৭৩

 

উত্তর:(খ) ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭২

ব্যাখ্যা:  ১৯৭২ সালের ১০ এপ্রিল গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন বসে। এ অধিবেশনে ৩৪ সদস্যবিশিষ্ট একটি সংবিধান কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটির সভাপতি ছিলেন আইন ও সংসদীয় মন্ত্রী ড. কামাল হোসেন। এ কমিটির দায়িত্ব ছিল সংবিধানের খসড়া প্রণয়ন করা । কমিটি ৭১ টি অধিবেশনে মিলত হয়ে স্বীয় দায়িত্ব পালন করে এবং ১৯৭২ সালের ১২ অক্টোবর গণপরিষদে সংবিধানের খসড়া পেশ করে, যা ৪ নভেম্বর গণপরিষদ কর্তৃক গৃহীত হয় এবং ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়।

 

৩৭। বিখ্যাত সাধক শাহ সুলতান বলখীর মাজার কোথায়?

(ক) মহাস্থানগড়ে         (খ) শাহজাদপুরে

(গ) নেত্রকোনায়            (ঘ) রামপালে

 

উত্তর: (ক) মহাস্থানগড়ে

ব্যাখ্যা: বিখ্যাত ‘শাহ সুলতান বলখী মাহীসাওয়ার’ ক্ষত্রীয় নরপতি পরশুরামকে পরাজিত করে এখানে ইসলামের বিজয় পতাকা উড্ডীন করেন। তাঁর মাজারটি বগুড়া শহর থেকে ১০কিমি দূরে মহাস্থানগড়ের দক্ষিন-পূর্ব কোণে অবস্থিত । মহাস্থানগড়ের প্রধান নির্দেশনগুলো হলো বৈরাগী ভিটা, গোবিন্দ ভিটা, সভাবাটি, শীলা দেবীর ঘাট, পরশুরামের প্রাসাদ ইত্যাদি।

 

৩৮। বাংলাদেশের লোকশিল্প জাদুঘর কোথায় অবস্থিত?

(ক) চট্টগ্রামে              (খ) বগুড়ায়

(গ) সোনারগাঁওয়ে        (ঘ) রামপালে

 

উত্তর: (গ) সোনারগাঁওয়ে   

ব্যাখ্যা: বাংলাদেশের লোকশিল্পের অতীত কীর্তিসমূহ (নকশী কাঁথা, মাটির পাত্র, বেত, কাঁসা, মসলিন বস্ত্র, তৈজসপত্র ইত্যাদি) সংরক্ষণের জন্য নারায়গঞ্জ জেলার সোনারগাঁ লোক ও কারুশিল্প জাদুঘর স্থাপন করা হয়েছে। ১৯৯৬ সালের ৬ অক্টোবর সোনারগাঁ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের নাম পরিবর্তন করে ‘শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন’ জাদুঘর করা হয়েছে।

 

৩৯। বাংলায় ইউরোপীয় বণিকদের মধ্যে বাণিজ্যের উদ্দেশ্যে প্রথম এসেছিল-

(ক) ইংরেজরা     (খ) ওলন্দাজরা

(গ) ফরাসিরা       (ঘ) পর্তুগিজরা

 

উত্তর: (ঘ) পর্তুগিজরা

ব্যাখ্যা: পঞ্চদশ শতকের শেষভাগে পর্তুগিজ নাবিক ভাস্কো-দা-গামা আফ্রিকার পশ্চিম-পূব উপকূল ঘুরে বরাবর সমুদ্রপথে ভারতবর্ষে আসার পথ আবিষ্কার করেন। ১৫১৪ খ্রিস্টাব্দে পর্তুগিজ বণিকগণ উড়িষ্যার অন্তগর্ন্ত পিপলি নামক স্থানে সর্বপ্রথম বাণিজ্য কুঠি স্থাপন করে। ১৫১৭ খ্রিস্টাব্দে জো-ডি-সিলভেরা নামক জনৈক পর্তুগিজ সমর অধিনায়ক এক নৌবহর নিয়ে চট্টগ্রামে আসেন ও বাণিজ্য কুঠি স্থাপনের চেষ্টায় ব্যর্থ হন। পরবর্তীতে নুনো-দা- কুনহা নামক জনৈক পর্তুগিজ শাসনকর্তা বাংলায় বাণিজ্য কুঠি স্থাপনের চেষ্টা চালিয়ে যেতে থাকেন। ১৫৩৬ খ্রিস্টাব্দে বাংলার সুলতান মাহমুদ শাহ শের শাহের বিরুদ্ধে পর্তুগিজদের সাহায্যের আশায় চট্টগ্রাম ও সপ্তগ্রামে (হুগলি) বাণিজ্য কুঠি নির্মাণের অনুমতি দেন। এভাবে বাংলায় পর্তুগিজদের প্রতিষ্ঠা হয়। উল্লেখ্য, ১৬০২ সালে ওলন্দাজরা, ১৬০০ সালে ইংরেজরা এবং ১৬৬৪ সালে ফরাসিরা বাংলায় আগমন করেন।

 

৪০। বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ চালু করেছিলেন-

(ক) লক্ষ্মণ সেন            (খ) ইলিয়াস শাহ

(গ) আকবর               (ঘ) বিজয় সেন

 

উত্তর: (গ) আকবর

ব্যাখ্যা: কৃষিকাজের সুবিধার্থে মোগল সম্রাট আকবর ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০/১১ মার্চ বাংলা সন প্রবর্তন করেন এবং তা ১৫৫৬ সালের ৫ নভেম্বর তার সিংহাসনে আরোহণের সময় থেকে কারর্যকর হয়।

 

৪১। পাহাড়পুরের বৌদ্ধ বিহারটি কি নামে পরিচিত ছিল?

(ক) সোমপুর বিহার   (খ) ধর্মপাল বিহার

(গ) জগদ্দল বিহার     (ঘ) শ্রী বিহার

 

উত্তর: (ক) সোমপুর বিহার

ব্যাখ্যা: নওগাঁ জেলায় অবস্থিত বৌদ্ধ বিহারের নাম সোমপুর বিহার। এর নির্মাতা ধর্মপাল ছিলেন পাল বংশের শ্রেষ্ঠ সম্রাট। এটি মধ্যযুগীয় সবচেয়ে বড় বিহার।

 

৪২। বাংলাদেশে চীনামাটির সন্ধান পাওয়া গেছে-

(ক) বিজয়পুরে    (খ) রানীগঞ্জে

(গ) টেকেরহাটে   (ঘ) বিয়ানী বাজারে

 

উত্তর: (ক) বিজয়পুরে

ব্যাখ্যা: পাকিস্তান ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর (বর্তমান বাংলাদেশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর) ১৯৫৭ সালে নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার ভেদিকুরা নামক স্থানে প্রথম চীনামাটির সন্ধান লাভ করে। এ চীনামাটিকে বিজয়পুর চীনামাটি নামকরণ করা করা হয়।

 

 ৪৩। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়-

(ক) ১৮৯৭ সালে    (খ) ১৯০২ সালে

(গ) ১৯২১ সালে     (ঘ) ১৯০৫ সালে

 

উত্তর: (গ) ১৯২১ সালে

ব্যাখ্যা: বঙ্গভঙ্গ রদ হলে ব্রিটিশরা পূববর্ঙ্গে একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয় এবং এজন্য ১৯১২ সালে ১৩ সদস্য বিশিষ্ট নাথান কমিশন গঠিত হয়। ঢাকার নবাব সলিমুল্লাহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য জমি দান করেন। কোলকাতার হিন্দুদের ব্যাপক বিরোধিতা সত্ত্বেও ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চালু হয়। পরবর্তীতে এটি প্রাচ্যের অক্সফোর্ড নামে খ্যাতি অর্জন করে।

 

৪৪। ঢাকার বিখ্যাত তারা মসজিদ তৈরি করেন-

(ক) শায়েস্তা খান

(খ) নওয়াব সলিমুল্লাহ

(গ) মির্জা আহমেদ জান

(ঘ) খান সাহেব আবুল হাসনাত

 

উত্তর:(গ) মির্জা আহমেদ জান

ব্যাখ্যা: পুরনো ঢাকার আরমানিটোলা এলাকায় তারা মসজিদ অবস্থিত। অলম্করণসমুদ্ধ এ মসজিদটি ঢাকা শহরের সুন্দর স্থাপত্যশৈলীর অন্যতম নির্দশন। মসজিদটি এমনভাবে তৈরি যে, এর ভেতরটা সব সময় শীতল থাকে। মসজিদটি নির্মাণ করেন মির্জা গোলাম পীর (মির্জা আহমদ জান) ।

 

৪৫। পাখি ছাড়া ‘বলাকা’ ও ‘দোয়েল’ নামে পরিচিত হচ্ছে-

(ক) দু’টি উন্নত জাতের গমশস্য

(খ) দু’টি উন্নত জাতের ধানশস্য

(গ) দু’টি উন্নত জাতের ভুট্টাশস্য

(ঘ) দু’টি উন্নত জাতের ইক্ষু

 

উত্তর: (ক) দু’টি উন্নত জাতের গমশস্য

ব্যাখ্যা: বলাকা ও দোয়েল ছাড়াও উন্নতজাতের আরো কিছু গম শস্য হলো সোনালিকা, আকবর, আনন্দ, কাঞ্চন, বরকত, অগ্রণী, ইনিরা ৬৬, জোপটেকো।

 

৪৬। ‘অগ্নিশ্বর’, ‘কানাইবাঁসী’, ‘মোহনবাঁশী,’ ও ‘বীটজবা’ কি জাতীয় ফলের নাম?

(ক) পেয়ারা       (খ) কলা

(গ) পেঁপে          (ঘ) জামরুল

 

উত্তর: (খ) কলা

ব্যাখ্যা: অগ্নিশ্বর, কানাইবাঁসী, মোহনবাঁশী ও বীটজবা উন্নত জাতের কলার নাম। এছাড়াও বাংলাদেশে আরো কিছু জাতের কলার চাষ হয়, যেমন- অমৃতসাগর, মেহেরসাগর, সবরি, সিঙ্গাপুরী, চাঁপা ইত্যাদি।

 

৪৭। বাংলায় চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত প্রথা প্রবর্তন করা হয় কোন সালে?

(ক) ১৭০০ সালে    (খ) ১৭৭২ সালে

(গ) ১৭৬৫ সালে     (ঘ) ১৭৯৩ সালে

 

উত্তর: (ঘ) ১৭৯৩ সালে

ব্যাখ্যা:লর্ড কনওয়ালিস ১৭৮৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর থেকে ১৭৯৩ সালের ১০ অক্টোবর পযর্ন্ত বাংলায় র্ফোট উইলিয়ামের গর্ভনর জেনারেল ছিলেন। তিনি ছিলেন চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত ও বাংলায় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির প্রশাসনিক ও বিচার ব্যবস্থার রুপকার।

 

৪৮। কোন মুঘল সম্রাট বাংলার নাম দেন ‘জান্নাতাবাদ’?

(ক) বাবর            (খ) হুমায়ুন

(গ) আকবর          (ঘ) জাহাঙ্গীর

 

উত্তর: (খ) হুমায়ুন

ব্যাখ্যা: মুঘল সম্রাট হুমায়ুন বাংলার নাম দেন ‘জান্নাতাবাদ’। বাবরের মৃত্যুর পর জ্যেষ্ঠপুত্র হুমায়ুন সিংহাসনে আরোহণ করেন।

 

৪৯। উপমহাদেশীয়দের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ভাইস চ্যান্সেলর-

(ক) ড. রমেশচন্দ্র মজুমদার

(খ) ড. মাহমুদ হাসান

(গ) ড. সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন

(ঘ) স্যার এ এফ রহমান

 

উত্তর: (ঘ) আবদুস সুলতান

ব্যাখ্যাঃ উপমহাদেশীয়দের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ভাইস চ্যান্সেলর ছিলেন স্যার আহমদ ফজলুর রহমান বা স্যার এ এফ রহমান (১৮৮৯-১৯৪৫)। তিনি ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে রিডার হিসেবে নিযুক্ত হন। ১৯৩৪ থেকে ১৯৩৬ সাল পযর্ন্ত তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপার্চায ছিলেন।

 

৫০। ১৯৮৮ সালের সিউল অলিম্পিকের বাংলাদেশের কোন ভাস্করের শিল্পকর্ম প্রদশনীতে স্থান পায়?

(ক) শামীম সিকদার

(খ) সৈয়দ আব্দুল্লাহ খালেদ

(গ) হাকিদুজ্জামান খান

(ঘ) আবদুস সুলতান

 

উত্তর: (গ) হাকিদুজ্জামান খান

ব্যাখ্যা: ১৯৮৮ সালের সিউল অলিম্পিকের পার্কে হামিদুজ্জামান খানের ‘স্টেপস্’ ভাস্কর্যর্টি স্থান পেয়েছিল। হামিদুজ্জামান খানেরর উল্লেখযোগ্য স্থাপত্য হলো ‘সংশপ্তক’ (জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়), ‘স্বাধীনতা’ (কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, ঢাকা) এবং ‘ক্যাম্পাস’ (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়)।

 

৫১। ঢাকায় সর্বপ্রথম কবে বাংলার রাজধানী স্থাপিত হয়?

(ক) ১২০৬ খ্রিঃ   (খ) ১৩১০ খ্রিঃ

(গ) ১৫২৬ খ্রিঃ    (ঘ) ১৬১০ খ্রিঃ

 

উত্তর: (ঘ) ১৬১০ খ্রিঃ

ব্যাখ্যা: সম্রাট জাহাঙ্গীর সিংহাসনে আরোহণ করে ইসলাম খান চিশতীকে বাংলা অধিকারে প্রেরন করেন। ইসলাম খান ১৬১০ সালে মুসা খানকে পরাজিত করে বাংলা অধিকার করেন এবং ঢাকার নামকরণ করেন ‘জাহাঙ্গীরনগর’ । তিনি এ সময় রাজমহল থেকে ঢাকায় রাজধানী স্থানান্তর করেন। উল্লেখ্য, ঢাকাকে ১৬১০ সালের পর ১৯০৫ সালে দ্বিতীয়বার, ১৯৪৭ সালে তৃতীয় বার ও ১৯৭১ সালে চতুর্থ বার রাজধানী করা হয়।

 

৫২। ‘পূর্বাশা’ দ্বীপের অপর নাম-

(ক) নিঝুম দ্বীপ

(খ) সেন্টমার্টিন দ্বীপ

(গ) দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপ

(ঘ) কুতুবদিয়া দ্বীপ

 

উত্তর: (গ) দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপ

ব্যাখ্যা: দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপটি সাতক্ষীরা জেলার দক্ষিণে সীমান্ত নদী হাড়িয়াভাঙ্গা ও রায়মঙ্গল নদীর মোহনায় অবস্থিত । এ দ্বীপটি বাংলাদেশের সীমানায় অবস্থিত হলেও ভারত এ দ্বীপের মালিকানা দাবি করে । ভারত এ দ্বীপের নাম দিয়েছে পূর্বাশা বা নিউমুর ।

 

৫৩। সার্ক –এর প্রথম শীর্ষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়-

(ক) ১৯৮৪ সালে

(খ) ১৯৮৭ সালে

(গ) ১৯৮৫ সালে

(ঘ) ১৯৮৬ সালে

 

উত্তর: (গ) ১৯৮৫ সালে

ব্যাখ্যা: দক্ষিণ এশীয় সহযোগিতা সংস্থা র্সাক-এর প্রথম শীর্ষ বৈঠক ১৯৮৫ সালের ৭-৮ ডিসেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে ১৯তম সম্মেলন পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়।

 

৫৪। আরব রাষ্ট্রগুলোরর মধ্যে কোনটি বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দেয়?

(ক) ইরাক             (খ) আলজেরিয়া

(গ) সৌদি আরব      (ঘ) জর্ডান

 

উত্তর: (ক) ইরাক

ব্যাখ্যাঃ আরব রাষ্ট্রগুলোরর মধ্যে প্রথম বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় ইরাক (৮ জুলাই ১৯৭২) । আলজেরিয়া বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় ১৩ জুলাই ১৯৭৩ এবং সৌদি আরব স্বীকৃতি দেয় ১৬ আগস্ট ১৯৭৫।

 

৫৫। পিএলও –এর সদর দপ্তর-

(ক) তিউনিস   (খ) বেনগাজি

(গ) রাবাত      (ঘ) মরক্কো

 

উত্তর: Note

ব্যাখ্যা: বর্তমান পিএলও‘র সদর দপ্তর ফিলিস্তিনে অবস্থিত । ইসরাইল ১৯৬৪ সালে PLO ‘র ওপর হামলা চালালে এর সদর দপ্তর তিউনিসে স্থানান্তর করা হয়েছিল ।

 

৫৬। জাতিসংঘের প্রথম মহাসচিব ছিলেন-

(ক) উ থান্ট

(খ)  ট্রিগভেলি

(গ) দ্যাগ হ্যামারশোল্ড

(ঘ) কুট ওয়াল্ডহেইম

 

উত্তর: (খ) ট্রিগভেলি

ব্যাখ্যা: জাতিসংঘের নির্বাচিত প্রথম মহাসচিব হলেন ট্রিগভেলি (১৯৪৬-১৯৫৩) । তিনি নরওয়ের অধিবাসী । দ্যাগ হ্যামারশোল্ড, উ থান্ট ও কুট ওয়াল্ডহেইম যথাক্রমে দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ মহাসচিব ছিলেন । উল্লেখ্য, জাতিসংঘেরর মহাসচিব অ্যান্টনিও গুতেরেস (০১.০১.২০১৭- বর্তমান)।

 

৫৭। নিরাপত্তা পরিষদের এশীয় আসনে বাংলাদেশের প্রতিন্দ্বী ছিল

(ক) ফিলিপাইন     (খ) জাপান

(গ) ইন্দোনেশিয়া    (ঘ) থাইল্যান্ড

 

উত্তর: (খ) জাপান

ব্যাখ্যা: ১৯৭৮ সালে নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী আসনে বাংলাদেশ শক্তিশালী জাপানের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় করে এবং জয়লাভ করে। অবশ্য ২০০০-২০০১ সালের জন্য বাংলাদেশ বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় অস্থায়ী সদস্য নির্বাচিত হয়।

 

৫৮। সাধারণ পরিষদের নিয়মিত অধিবেশন শুরু হয়-

(ক) সেপ্টেম্বর মাসের তৃতীয় মঙ্গলবার

(খ) সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সোমবার

(গ) সেপ্টেম্বর মাসের দ্বিতীয় বুধবার

(ঘ) সেপ্টেম্বর মাসের চতুর্থ মঙ্গলবার

 

উত্তর: (ক) সেপ্টেম্বর মাসের তৃতীয় মঙ্গলবার

ব্যাখ্যা: জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের নিয়মতি বার্ষিক অধিবেশন শুরু হয় প্রতি বছর সেপ্টেম্বর মাসের তৃতীয় মঙ্গলবার এবং মধ্য ডিসেম্বর পযর্ন্ত তা চলে। নিয়মতি অধিবেশন ছাড়াও সাধারণ পরিষদ জরুরি অধিবেশন ও বিশেষ অধিবেশনে মিলিত হয়।

 

৫৯। বর্তমানে জাতিসংঘের সদস্য সংখ্যা-

(ক) ১৫৬ (খ) ১৫৭

(গ) ১৫৮ (ঘ) ১৮৮

 

উত্তর:Note:

[Note: বর্তমানে জাতিসংঘের সদস্য ১৯৩ এবং সবর্শেষ সদস্য রাষ্ট্র হলো দক্ষিণ সুদান (সদস্যপদ লাভ ১৪ জুলাই,২০১১)]

 

৬০। ইসলামী সম্মেলন সংস্থার সচিবালয় অবস্থিত-

(ক) রিয়াদ    (খ) জেদ্দা

(গ) দামেস্ক   (ঘ) মক্কা

 

উত্তর: (খ) জেদ্দা

ব্যাখ্যা: ২৫ সেপ্টেম্বর, ১৯৬৯ মরক্কোর রাজধানী রাবাতে OIC গঠিত হয় এবং এর সদর দপ্তর সৌদি আরবের জেদ্দাতে প্রতিষ্ঠিত হয়। উল্লেখ্য, ইসলামী সম্মেলন সংস্থার বর্তমান নাম ইসলামী সহযোগিতা সংস্থা ।

 

৬১। যে দেশ এসডিআই প্রতিরক্ষা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে-

(ক) ব্রিটেন           (খ) ফ্রান্স

(গ) যুক্তরাষ্ট্র         (ঘ) রাশিয়া

 

উত্তর: (গ) যুক্তরাষ্ট্র

ব্যাখ্যা: ১৯৮৩ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কৌশলগত প্রতিরক্ষা কর্মসূচি বা Strategic Defece Initiative কর্মসূচি ঘোষণা করে। মার্কিন সিনেটর অ্যাডওয়ার্ড কেনেডি একে তারকা যুদ্ধ (Star war) বলে অভিহিত করেন।

 

৬২। ব্রিটেনের প্রশাসনিক সদর দপ্তরকে বলা হয়-

(ক) ওয়েস্ট মিনিস্টার অ্যাবে

(খ) হোয়াইট হল

(গ) মার্বেল র্চাচ

(ঘ) বুশ হাউজ

 

উত্তর: (খ) হোয়াইট হল

ব্যাখ্যা: হোয়াইট হল লন্ডনে অবস্থিত ।এটি ব্রিটেনের রানীর বাবেক সরকারি বাসভবন। ওয়েস্ট মিনিস্টার অ্যাবে হলো বিখ্যাত ব্রিটিশ নাগরিকদের সমাধিস্থল । বুশ হাউজ বিবিসির, সাবেক প্রধান র্কাযালয় ।

 

৬৩। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধে র্জামানি আত্নসমর্পণ করে-

(ক) ১৯৪২ সালের নভেম্বর মাসে

(খ) ১৯৪৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে

(গ) ১৯৪৫ সালের মে সাসে

(ঘ) ১৯৪৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে

 

উত্তরঃ (Note)

[Note: ১৯৪৫ সালের ৩০ এপ্রিল হিটলার আত্নহত্যা করলে র্জামানির পতন ঘটে। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে র্জামানি ৯ এপ্রিল ১৯৪৫ সোভিয়েত জেনারেল জর্জ জোকভের নিকট আত্নসমর্পণ করে।]

 

৬৪।কঙ্গোকে বিদেশী শাসন থেকে মুক্ত করার লড়াইয়ে চিরস্থায়ী নাম

(ক) কাশাভুবু(খ) প্যাট্রিক লুমুম্বা

(গ) শোম্বে      (ঘ) মবুতু

 

উত্তর: (খ) প্যাট্রিক লুমুম্বা

ব্যাখ্যা:কঙ্গোতে দখলদার ঔপনিবেশিক শক্তির বিরুদ্ধে জাতীয়তাবাদ আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন প্যাট্রিক লুমুম্বা। তিনি জয়লাভ করলে কঙ্গো স্বাধীন রাষ্ট্রে পরিণত হয়।

 

৬৫। হিরোশিমায় এটম বোমা ফেলা হয়েছিল-

(ক) ১৯৪৫ সালের আগস্ট মাসে

(খ) ১৯৪৫ সালের মে মাসে

(গ) ১৯৪৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে

(ঘ) ১৯৪৪ সালের আগস্ট মাসে)

 

উত্তরঃ (ক) ১৯৪৫ সালের আগস্ট মাসে

ব্যাখ্যা: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৪৫ সালে চারটি পারমাণবিক বোমা তৈরি করে। এর মধ্যে ‘ট্রিনিটি’র পরীক্ষামূলক বিস্কোরণ ঘটায় ।১৯৪৫ সালের ৬ আগস্ট হিরোশিমায় ‘লিটলবয়’ এবং ৯ আগস্ট নাগাসাকিতে ‘ফ্যাটম্যান’ বোমার বিস্কোরণ ঘটালে জাপানের পতন ত্বরান্বিত হয়।

 

৬৬। আইএমএফ- এর সদর দপ্তর কোথায়?

(ক) ওয়াশিংটন  (খ) মস্কো

(গ) লন্ডন          (ঘ) নিউয়ইর্ক

 

উত্তরঃ (ক) ওয়াশিংটন 

ব্যাখ্যা: IMF (International Monetary Fund)- এর সদর দপ্তর যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে।১-২২ জুলাই, ১৯৪৪ ব্রেটন উডসের জাতিসংঘ মনিটারি এন্ড ফিনান্সিয়াল কনফারেন্সে IMF গঠিত হয়। কার্যক্রম শুরু করে ১৯৪৭ সালের ১ র্মাচ থেকে।

 

৬৭। নিকারাগুয়ায় যে বিন্দ্রোহীদের যুক্তরাষ্ট্র সমর্থন করে তার নাম-

(ক) ইউনিটা

(খ) সান্ডিনিস্টা

(গ) কন্ট্রা

(ঘ) সোয়াপো

 

উত্তর: (গ) কন্ট্রা

ব্যাখ্যা: মধ্য আমেরিকার হ্রদ ও আগ্নেয়গিরির দেশ নিকারগুয়ার বিদ্রোহী গ্রুপ কন্ট্রা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনপুষ্ট । ১৯৯০ সালে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ এ অঞ্চলে শান্তি আনয়নে গঠন করে মধ্য আমেরিকায় জাতিসংঘ পর্যবেক্ষক দল (ONUCA) এবং পর্যবেক্ষক দলটি কন্ট্রা বিদ্রোহীদের স্বেচ্ছা বিলুপ্তি তদারক করে। ফলশ্রুতিতে হন্ডুরাস ও নিকারাগুয়ায় প্রায় ২২ হাজার কন্ট্রা বিদ্রোহী জাতিসংঘ পর্যবেক্ষকদের কাছে অস্ত্র সমপর্ণ করে।

 

৬৮। ‘ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যান’ কোন দেশে অবস্থিত?

(ক) ইরান

(খ) ইরাক

(গ) মিশর

(ঘ) সিরিয়া

 

উত্তর: (খ) ইরাক

ব্যাখ্যা: ‘ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যান’ ইরাকে অবস্থিত । রাজা নেবুচাদনেজার তার স্ত্রীর মনোরঞ্জনের জন্য প্রায় ৩০০ মিটার উচুঁ এ উদ্যান নির্মাণ করেন।

 

৬৯। ইতিহাস বিখ্যাত ট্রয় নগরী কোথায়?

(ক) ইতালি

(খ) স্পেন

(গ) তুরস্ক

(ঘ) গ্রিস

 

উত্তর: (গ) তুরস্ক

ব্যাখ্যা: ইতিহাসখ্যাত ট্রয় নগরী তুরস্কে অবস্থিত । গ্রিকদের সাথে ট্রয়বাসীর যুদ্ধ হলে এ নগরী তছনছ হয়ে যায়।

 

 

৭০ । নিচের কোন সংখ্যাটি মৌলিক?

(ক) ৯১     (খ) ১৪৩

(গ) ৪৭       (ঘ) ৮৭

 

উত্তর: (গ) ৪৭

ব্যাখ্যা: ক. ৯১=৭ ১৩,  খ. ১৪৩=১১ ১৩

গ. ৪৭=১ ৪৭, ঘ. ৮৭= ৩ ২৯,

মৌলিক সংখ্যা ৪৭ ।

 

বিষয়ঃ গনিত

 

৭০ । নিচের কোন সংখ্যাটি মৌলিক?

(ক) ৯১                (খ) ১৪৩

(গ) ৪৭                 (ঘ) ৮৭

 

উত্তর: (গ) ৪৭

ব্যাখ্যা: ক. ৯১=৭ ১৩,          খ. ১৪৩=১১ ১৩

গ. ৪৭=১ ৪৭,                     ঘ. ৮৭= ৩ ২৯,

মৌলিক সংখ্যা ৪৭ ।

৭১। কোনো একটি জিনিস নির্মাতা ২০% লাভে ও খুচরা বিক্রেতা ২০% লাভে বিক্রয় করে। যদি ঐ জিনিসের নির্মাণ খরচ ১০০ টাকা হয় তবে খুচরা মূল্য কত?

(ক) ১৪০ টাকা                      (খ) ১২০টাকা

(গ) ১৪৪ টাকা                       (ঘ) ১২৪ টাকা

 

উত্তর: (গ) ১৪৪ টাকা

ব্যাখ্যা: নির্মাতার বিক্রয় মূল্য = ১০০+২০%= ১২০ টাকা

খুচরা বিক্রেতার   ,,    ,, = ১২০+১২০ এর ২০%

=১৪৪ টাকা

৭৩। ১ থেকে ৪৯ পযর্ন্ত সংখ্যার গড় কত?

(ক) ২৩                   (খ) ২৪.৫

(গ) ২৫                    (ঘ) ২৬.৫

 

উত্তর: (গ) ২৫

৭৪। টাকায় তিনটি করে আম ক্রয় করে টাকায় ২টি করে বিক্রয় করলে শতকরা কত লাভ হবে?

(ক) ৫০%                 (খ) ৩৩%

(গ) ৩০%                  (ঘ) ৩১%

 

উত্তর: (ক) ৫০%     

৭৫। ত্রিভুজ ABCএর BE=FE=CF । AFC এর ক্ষেত্রফল  ৪৮ বর্গফুট হলে, ত্রিভুজ ABC এর ক্ষেত্রফল কত বর্গফুট?

(ক) ৭২                             (খ) ৬০

(গ) ৪৮                              (ঘ) ৬৪

 

উত্তর: (ক) ৭২

 

৭৬। a+b=5 এবং a-b=3 হলে ab এর মান কত?

() 2                           () 3  

() 4                            (ঘ) 5

৭৭। ৬০ লিটার কেরোসিন ও পেট্রোলের মিশ্রণের অনুপাত ৭:৩। ঐ মিশ্রণে আর কত লিটার পেট্রোল মিশালে অনুপাত ৩:৭ হবে?

(ক) ৭০                   (খ) ৮০

(গ) ৯০                    (ঘ) ৯৮

৭৮| 1 n‡Z 30 ch©šÍ KqwU †gŠwjK msL¨v Av‡Q?

(K) 11 wU                   (L) 24 wU

(M) 10 wU                   (N) 9 wU

 

উত্তর: (M) 10 wU

e¨vL¨v: 1n‡Z 30 ch©šÍ msL¨v 2, 3, 5, 7, 11, 13, 17, 19, 23, 29=10wU

 

৭৯| `ywU msL¨vi ¸Ydj 1536| msL¨v `y‡Uvi j.mv.¸ 96 n‡j M.mv.¸ KZ?

(K) 16                   (L) 24

(M) 32                   (N) 12

 

৮১| সরল সুদের হার শতকরা কত টাকা হলে যে কোনো মূলধন ৮ বছরে সুদে-আসলে তিনগুণ হবে?

(ক) ১২.৫০ টাকা                    (খ) ২০ টাকা

(গ) ২৫ টাকা                   (ঘ) ১৫ টাকা

৮২। wPwbi g~j¨ 25% e„w× পাওয়াতে একটি পরিবার চিনি খাওয়া এমনিভাবে কমালো যে চিনি বাবদ ব্যয় বৃদ্ধি পেল না। ঐ পরিবার চিনি খাওয়ার খরচ শতকরা কত কমিয়েছিল?

(ক) ২২%       (খ) ২৫%

(গ) ২০%        (ঘ) ৩০%

৮৩। যদি (x-5) (a+x) =x -25 হয় তবে a এর মান কত?

(ক) -5                      (খ) 5

(গ) 25                     (ঘ) -25

 

উত্তর: (খ) 5

ব্যাখ্যা: (x-5) (a+x)=x2– 25

=(x-5) (a+x) = (x+5) (x-5)

= a+x=x+5

=a=5

 

৮৪। a+b+ c= 0 হলে a3+b3+c3 এর মান কত?

(ক) abc              (খ) 3abc

(গ) 6abc             (ঘ) 9abc

 

উত্তর: (খ) 3abc

ব্যাখ্যা: a3+b3+c3

= (a+b+c) (a2+b2+c2-ab-bc-ca) +3abc

=0+3abc=3abc

 

৮৫। ত্রিভূজের একটি কোণ এর অপর দুটি কোণের সমষ্টির সমান হলে ত্রিভূজটি –

 

(ক) সমকোণী           (খ) স্থুলকোণী

(গ) সমবাহু               (ঘ) সূক্ষ্মকোণী

 

উত্তর: (ক) সমকোণী

ব্যাখ্যা: আমরা জানি, ত্রিভূজের তিন কোণের সমষ্টি দুই সমকোণ। একটি কোণ ৯০হলে অপর কোণদ্বয়ের সমষ্টি ৯০

ত্রিভূজটি সমকোণী ত্রিভূজ।

বিষয়ঃ সাধারন বিজ্ঞান

৮৬। নবায়নযোগ্য শক্তি উৎসের একটি উদাহরণ হলো-

(ক) পারমাণবিক জ্বালানি (খ) পীট কয়লা

(গ)ফুয়েল সেল               (ঘ) সূর্য

 

উত্তর: (ঘ) সূর্য

ব্যাখ্যা: যেসব শক্তি উৎস অফুরন্ত এবং বারবার ব্যাবহার করা যায় তাদেরকে নবাযনযোগ্য শক্তি বলা হয়। সূর্য পানি ও বায়ু নবায়নযোগ্য শক্তির উৎস। অন্যদিকে যে শক্তির উৎস অফুরন্ত নয় এবং বারবার ব্যবহারের ফলে এক সময় নিঃশেষিত হয়ে যায় সেগুলোকে অনবায়নযোগ্য শক্তি বলে। কয়লা, গ্যাস, তেল, পারমাণবিক জ্বালানি ইত্যাদি অনবায়নযোগ্য শক্তির উৎস।

 

৮৭। প্রেসার কুকারে রান্না তাড়াতাড়ি হয় কারণ-

(ক) রান্নার জন্য তাপ নয় চাপও লাগে

(খ) বদ্ধ পাত্রে তাপ সংরক্ষিত হয়

(গ) উচ্চচাপে তরলের স্ফুটনাংক বৃদ্ধি পায়

(ঘ) সঞ্চিত বাষ্পের তাপ রান্নায় সহায়ক

 

উত্তর:(গ) উচ্চচাপে তরলের স্ফুটনাংক বৃদ্ধি পায়

ব্যাখ্যা: বায়ুর চাপ যতো বৃদ্ধি পায় পানি বা তরলের স্ফুটনাংক ততো বৃদ্ধি পায়। প্রেসার কুকারে বাষ্পের বহির্গমন নিয়ন্ত্রণ করার মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ চাপ বৃদ্ধির ফলে পানির সস্ফুটনাংক  বৃদ্ধি পায়। এ কারণে প্রেসার কুকারের রান্না তাড়াতাড়ি হয়।

 

৮৮। যে তিনটি মুখ্য বর্ণের সমন্বয়ে অন্যান্য বর্ণ সৃষ্টি করা যায় সেগুলো হলো-

(ক) লাল, হলুদ, নীল                                   (খ) লাল, কমলা, বেগুনী

(গ) হলুদ, সবুজ, নীল                                   (ঘ) লাল, নীল, সবুজ

 

উত্তর: (ঘ) লাল, নীল, সবুজ

ব্যাখ্যা: তিনটি মৌলিক রং হচ্ছে লাল, নীল (আসমানী) ও সবুজ । এই রংগুলোর সমন্বয়ে গঠিত হয় অন্যান্য রং।

 

৮৯। ভৌগলিকভাবে গুরত্বপূর্ণ যে কাল্পলিক রেখাটি বাংলাদেশের উপর দিয়ে গিয়েছে তা হলো-

(ক) মূল মধ্যরেখা                              (খ) কর্কটক্রান্তি রেখা

(গ) মকরক্রান্তি রেখা                           (ঘ) আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা

 

উত্তর:(খ) কর্কটক্রান্তি রেখা

ব্যাখ্যা: নিরক্ষরেখার ২৩.৫ উত্তরঅক্ষাংশকে কর্কটক্রান্তি এবং ২৩.৫  দক্ষিণ অক্ষাংশকে মকরক্রান্তি রেখা বলে। বাংলাদেশের প্রায় মধ্যভাগ দিয়ে কর্কটক্রান্তি রেখা গেছে।লন্ডনের গ্রিনিচ মান মন্দিরের ওপর দিয়ে উত্তরমেরু ও দক্ষিন মেরু পর্যন্ত যে মধ্যরেখা অতিক্রম করেছে তাকে মূল মধ্যরেখা বলা হয়। ১৮০  দ্রাঘিমাংশ বারবার এক কাল্পনিক রেখাকে আন্তর্জাতিক তারিখ রেখা বলা হয়।

 

৯০। মাছ অক্সিজেন নেয়-

(ক) মাঝে মাঝে পানির উপর নাক তুলে

(খ) পানিতে অক্সিজেন ও হাইড্রোজেন বিশ্লিষ্ট করে

(গ) পটকার মধ্যে জমানো বাতাস হতে

(ঘ) পানির মধ্যে দ্রবীভূত বাতাস হতে

 

উত্তর:(ঘ) পানির মধ্যে দ্রবীভূত বাতাস হতে

ব্যাখ্যা: ফুসফুসযুক্ত মাছ যেমন – কৈ, শিং, মাগুর ইত্যাদি ছাড়া অন্য সকল মাছ ফুলকার সাহায্যে পানিতে দ্রবীভূত অক্সিজেনের মাধ্যমে শ্বাসকার্য চালায়।

 

৯১। কচুশাক বিশেষভাবে মূল্যবান যে উপাদানের জন্য তা হলো-

(ক) ভিটামিন ‘এ’                                      (খ) ভিটামিন ‘সি’

(গ)  লৌহ                  (ঘ) ক্যালসিয়াম

 

উত্তর: (গ) লৌহ                                                 

ব্যাখ্যা: কচুশাকের উল্লেখযোগ্য উপাদান লৌহ । তাছাড়া এতে ভিটামিন-এ’ ক্যালসিয়াম অক্সালেট এবং অন্যান্য ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ রয়েছে।

 

৯২। সাধারণ ড্রাইসেলে ইলেকট্রোড হিসেবে থাকে-

(ক) তামার দণ্ড ও দস্তার দণ্ড

(খ) তামার পাত ও দস্তার পাত

(গ) কার্বন দণ্ড ও দস্তার কৌটা

(ঘ) তামার দণ্ড ও দস্তার কৌটা

 

উত্তর: (গ) কার্বন দণ্ড ও দস্তার কৌটা

ব্যাখ্যা: ড্রাইসেলে উপাদান হিসেবে থাকে অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইডের পেস্ট, কার্বন দণ্ড দস্তার তৈরি চোঙাকৃতির পাত্র, ম্যাঙ্গানিজ ডাই অক্সাইড, কয়লার গুড়ো, পিতলের টুপি এবং শক্ত কাগজ। এতে ইলেকট্রোড হিসেবে কার্বন দণ্ড ও দস্তার তৈরি চোঙাকৃতি পাত্র ব্যবহৃত হয়।

 

৯৩। দূরের বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র হতে বিদ্যুৎ নিয়ে আসতে হলে হাইভোল্টেজ ব্যবহার করার কারণ-

(ক) এতে বিদ্যুতের অপচয় কম হয়

(খ) এতে কমে গিয়েও প্রয়োজনীয় ভোল্টেজ বজায় থাকে

(গ) অধিক বিদ্যুৎ প্রবাহ পাওয়া যায়

(ঘ) প্রয়োজনমতো ভোল্টেজ কমিয়ে ব্যবহার করা যায়

 

উত্তর: (ক) এতে বিদ্যুতের অপচয় কম হয়

ব্যাখ্যা: বৈদ্যুতিক তারের রোধের জন্য উচ্চ ভোল্টেজ ব্যবহার করে দূরবর্তী স্থানে বিদ্যুৎ নিয়ে আসা হয়। এতে বিদ্যুতের অপচয় কম হয়।

 

৯৪। সংকর ধাতু পিতলের উপাদান হলো-

(ক) তামা ও টিন                                     (খ) তামা ও দস্তা

(গ) তামা ও নিকেল                                 (ঘ) তামা ও সীসা

 

উত্তর: (খ) তামা ও দস্তা

ব্যাখ্যা: তামা ও টিন মেশালে ব্রোঞ্জ হয় এবং তামার সাথে দস্তা মেশালে পিতল হয়।

 

৯৫। আমাদের দেহকোষ রক্ত হতে গ্রহণ করে-

(ক) অক্সিজেন ও গ্লুকোজ

(খ) অক্সিজেনে ও রক্তের আমিষ

(গ) ইউরিয়া ও গ্লুকোজ

(ঘ) এমাইনো এসিড ও কার্বন ডাইঅক্সাইড

 

উত্তর: (ক) অক্সিজেন ও গ্লুকোজ

ব্যাখ্যা: রক্তের হিমোগ্লোবিন অক্সিজেনকে ফুসফুস হতে কোষে এবং কার্ব-ডাই- অক্সাইডকে ফুসফুসে নিয়ে আসে। তাছাড়া রক্ত কর্তৃক গ্লুকোজ দেহের সকল কোষে স্থানান্তরিত হয়।

 

৯৬। পৃথিবীর ঘূর্ণনের ফলে আমরা ছিটকিয়ে পড়ি না-

(ক) মহাকর্ষ বলের জন্য

(খ) মাধ্যাকর্ষণ বলের জন্য

(গ) আমরা স্থির থাকার জন্য

(ঘ) পৃথিবীর সঙ্গে আমাদের আবর্তনের জন্য

 

উত্তর:(খ) মাধ্যাকর্ষণ বলের জন্য

ব্যাখ্যাঃ পৃথিবী সবকিছুকেই তার কেন্দ্রের দিকে টানে, একে মাধ্যাকর্ষণ বলে। এই মাধ্যাকর্ষণের জন্যে সবকিছু পৃথিবীর সঙ্গে লেগে থাকে এবং ছিটকে মহাশূন্যে যায় না।

 

৯৭। নিচের কোনটি জীবাশ্ম জ্বালানি নয়?

(ক) পেট্রোলিয়াম                                      (খ) কয়লা

(গ) প্রাকৃতিক গ্যাস                                    (ঘ) বায়োগ্যাস

 

উত্তর:(ঘ) বায়োগ্যাস

ব্যাখ্যা: কোটি কোটি বছর পূর্বে গাছগাছড়া, জীবজন্তু প্রভৃতি ভূমিকম্পসহ নানা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ফলে ভূ-অভ্যন্তরে চাপা পড়ে যায় এবং ভূ-অভ্যন্তরের প্রচণ্ড চাপ ও তাপে এসব পদার্থের জৈব বিধ্বংসী পাতন ঘটে এবং পেট্রোলিয়াম, কয়লা ও প্রাকৃতিক গ্যাস আকারে ভূ-অভ্যন্তরে অবস্থান করে। এগুলোকে জীবাশ্ম জ্বালানি বলে। বায়োগ্যাস জীবাশ্ম জ্বালানি নয় কারণ এটি গাজন প্রক্রিয়ার তৈরি করা হয়।

 

 

৯৮। বৈদ্যুতিক মটর এমন একটি যন্ত্রকৌশল, যা-

(ক) তাপ শক্তিকে যান্ত্রিক শক্তিকে রুপান্তরিত করে

(খ) তাপ শক্তিকে তড়িৎ শক্তিতে রুপান্তরিত করে

(গ) যান্ত্রিক শক্তিকে তড়িৎ শক্তিতে রুপান্তরিত করে

(ঘ) তড়িৎ শক্তিকে যান্ত্রিক শক্তিতে রুপান্তরিত করে

 

উত্তর:(ঘ) তড়িৎ শক্তিকে যান্ত্রিক শক্তিতে রুপান্তরিত করে

ব্যাখ্যা: যে যন্ত্র তড়িৎ শক্তিকে যান্ত্রিকশক্তিতে রুপান্তরিত করে তাকে বৈদ্যুতিক মটর বলে এবং যান্ত্রিক শক্তিকে তড়িৎ শক্তিতে রুপান্তরকারী যন্ত্রকে জেনারেটর বলে।

 

৯৯। যে বায়ু সর্বদাই উচ্চচাপ অঞ্চল হতে নিম্ন চাপ অঞ্চল দিকে প্রবাহিত হয়, তাকে বলা হয়-

(ক) আয়ন বায়ু                                       (খ) প্রত্যয়ন বায়ু

(গ) মৌসুমী বায়ু                                      (ঘ) নিয়ত বায়ু

 

উত্তর: (ঘ) নিয়ত বায়ু

ব্যাখ্যা: পৃথিবীর চাপ বলয় দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে বায়ু উচ্চচাপ অঞ্চল হতে নিম্মচাপ অঞ্চলে প্রবাহিত হওয়ার উত্তর গোলার্ধে বামদিকে বেঁকে যায়। এভাবে সারা বছর একই দিকে নিয়মিতভাবে যে বায়ু প্রবাহিত হয় তাকে নিয়ত বায়ু বলে।

 

১০০। জলজ উদ্ভিদ সহজে ভাসতে পারে, কারণ-

(ক) এরা অনেক ছোট হয়

(খ) এদের কাণ্ডে অনেক বায়ু কুঠুরী থাকে।

(গ) এরা পানিতে জন্মে

(ঘ) এদের পাতা অনেক কম থাকে

 

উত্তরঃ (খ) এদের কাণ্ডে অনেক বায়ু কুঠুরী থাকে।

ব্যাখ্যা: জলজ উদ্ভিদের কাণ্ডে প্রচুর পরিমাণে বায়ু কুঠুরী রয়েছে, যেগুলোতে বায়ু থাকায় জলজ উদ্ভিদ সহজেই পানির উপর ভেসে থাকতে পারে।

No comments found.